প্রধান মেনু

ঈশ্বরদীতে আওয়ামীলীগ সভাপতিকে পিটিয়ে গুরুতর আহত ও টাকা লুট করেছে যুবলীগ কর্মীরা

ঈশ্বরদী ॥ চাঁদা না পেয়ে ঈশ^রদী পৌর আওয়ামীলীগের সদস্য ও ৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল কাসেম গুলবারকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মারাতœক আহত করে টোলের ২০ হাজার টাকা লুট করা করা হয়েছে। বুধবার সকাল এগারোটায় পৌর সুপার মার্কেটের সামনে দৈনিক সবজি বাজারে আমবাগান এলাকার পদ পদবীহীন যুবলীগ কর্মী আলমগীর হোসেন ও শফিকুল ইসলামসহ অন্যরা তাকে মারপিট ও টাকা লুট করে নেয়। ঘটনার পর স্থানীয়রা গুলবারকে উদ্ধার করে ঈশ^রদী হাসপাতালে ভর্তি করেছে। এ ঘটনায় বাজার এলাকায় উত্তেজনা পুলিশী তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে।
ঈশ^রদী পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ইসাহক আলী মালিথা, ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি শিরহান শরীফ তমাল ,ঈশ^রদী পৌর যুবলীগের সভাপতি আলাউদ্দিন বিপ্লব ও আহত আওয়ামীলীগ নেতা গুলবার হোসেনের ছেলে সনি অভিযোগ করে বলেন, আলমগীর হোসেন ও শফিকুল ইসলাম যুবলীগ ঈশ^রদীর কোন শাখার সদস্য না। তারা ঈশ^রদী পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টুর ভাড়াটে সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্য। তারা পৌর সুপার মার্কেটের সামনে দৈনিক সবজি বাজারের ইজারাদার ও আহত আওয়ামী লীগ নেতা গুলবার হোসেনের নিকট মাঝে মধ্যেই চাঁদা দাবি করতো এবং চাঁদা নিয়ে আসছিল। একইভাবে তারা গত কয়েক দিন থেকে গুলবারের কাছে আবারও চাঁদা দাবি করে। তাদের দাবিকৃত চাঁদা না দেওয়া এবং ú্রয়াত ভুমি মন্ত্রীর স্ত্রী ও ঈশ^রদী উপজেলা মহিলালীগের সভাপতি কামরুন্নাহার শরীফের দেওয়া নির্দেশনা অনুযায়ী ৭ নং ওয়ার্ডে দুস্থদের নামের তালিকা তৈরীর অপরাধে গুলবারকে মারপিট করে আহত ও সবজি বাজারের টোলের নগদ ২০ হাজার টাকা লুট করা হয়েছে। ঈশ^রদী পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ইসাহক আলী মালিথা ও ঈশ^রদী পৌর যুবলীগের সভাপতি আলাউদ্দিন বিপ্লব এই ন্যাক্কার জনক ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং মেয়র আবুল কালাম আজাদসহ জড়িতদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেছেন। অভিযোগের বিষয়ে জানার জন্য পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ মিন্টুকে মুঠোফোনে দ’ুবার কল করা হলে কল রিসিভ করে কথা বলেননি। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিল।