প্রধান মেনু

চাউল বিতরণের তদন্ত দাবি বিভিন্ন নেতাদের

ঈশ্বরদীতে টিসিবির পণ্য কালোবাজারে বিক্রয়কালে ১১ বস্তাসহ দু’জন আটক ॥

পায়েল হোসেন রিন্টু,ঈশ^রদী ॥ ট্রেডিং কর্পোরেশন অফ বাংলাদেশ (টিসিবি) পণ্য কালো বাজারে বিক্রয় কালে মুলাডুলির ডিলারসহ দু’জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলো মুলাডুলি ইউনিয়নের মধ্যপাড়ার মৃত সনৎ কুমারের ছেলে টিসিবি’র ডিলার উৎপল কুমার সরকার ও তার সহকারী একই এলাকার আব্দুল মালেক শেখের ছেলে খোকন শেখ। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার রাতে টিসিবি’র ১১ বস্তা খাদ্য সামগ্রিসহ তাদের মুলাডুলির মধ্যপাড়া থেকে তাদের আটক করা হয়। টিসিবির ৫ বস্তা চিনি, ২ মসুর ডাউল ও ৪ বস্তা ছোলা কালো বাজারে বিক্রয়ের জন্য তার সহকারী খোকন শেখের বাড়িতে মজুদ করে। বিষয়টি সন্দেহজনক হওয়ায় পুলিশে খবর দেওয়া হয়।
থানা পুলিশ ও এলাকাবাসীদের সুত্রে জানা যায়, করোনা ভাইরাসের মহামারিতে দেশের বিভিন্ন এলাকার টিসিবি ও খোলা বাজারে ন্যায্য মুল্যে বিক্রয় (ওএমএস) চাউলের ডিলাররা কালো বাজারে বিক্রয় ও মজুদ করার খবর প্রকাশের পর স্থানীয় ডিলারদের উপর নজরদারি রাখা হয়। ঘটনার দিন মুলাডুলির ডিলার উৎপল কুমার সরকারের এই টিসিবির খাদ্য সামগ্রী বিক্রির ঘটনা জানার পর তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে সুষ্ঠ তদন্ত ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবী করেছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের সিনিয়র যুগ্ন সম্পাদক প্রকৌশলী আব্দুল আলিম, মুলাডুলি ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম মালিথা, পদকপ্রাপ্ত মৎস্য চাষী হাবিবুর রহমান,পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইসাহক মালিথা ঈশ^রদীর পৌর সভা ও ইউনিয়নগুলোতে টিসিবি, ওএমএস চাউলের ডিলারদের মাধ্যমে যে সব খাদ্য সামগ্রি বিক্রয় করা হয়েছে তা প্রকৃত সুবিধাভোগিদের মধ্যে বিক্রয় করা হয়েছে কিনা তা তদন্ত করে দেখা দরকার। টিসিবির মুলাডুলির ডিলারসহ তার সহকারী আটক হওয়ার পর মনে হচ্ছে ঈশ^রদীতেও আগে থেকেই কালো বাজারে বিক্রয় ও মজুদ করে রাখা হয়ে থাকতে পারে বলে দাবী করেন এসব নেতারা। একই সাথে তারা দাবি করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ত্রাণের চাউল,ওএমএস,ভিজিডি,ভিজিএফ ও টিসিবির পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী বিক্রি করতে দেওয়ার সুযোগে ব্যাপক আকারে সংশ্লিষ্টরা ঘাপলা করতে পারে। প্রতিদিন পৌর ও বিভিন্ন ইউনিয়ন এলাকার শত শত গরীব মানুষের অভিযোগ থাকায় এ বিষয়েও তদন্ত করা দরকার। এমনকি খাদ্য গুদামে গিয়েও ডিও নম্বর মিলিয়ে দেখা দরকার যে,কোন কোন এলাকায় কত মেট্রিকটন চাউল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এবং কত মেট্রিক টন চাউল কিভাবে উত্তোলন করে কোথায় কোথায় বিতরণ করা হয়েছে।
ঈশ^রদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবির জানান, ঈশ^রদীর বিভিন্ন এলাকার টিসিবি ও ওএমএস চাউল বিক্রয়ের ডিলাররা কালো বাজারে খাদ্য সামগ্রি বিক্রয় করছে বলে তথ্য পাওয়া যায়। এসব তর্থের ভিত্তিতে ডিলারদের উপর নজরদারী রাখা হয়। ঘটনার দিন অভিযান চালিয়ে টিসিবির ডিলার উৎপল কুমার সরকারসহ তার সহযোগিকে আটক করা হয়। খোকনের ঘর থেকে উদ্ধার করা হয় টিসিবির ১১ বস্তা পণ্য। মঙ্গলবার দুপুরে আটককৃতদের পাবনা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।