প্রধান মেনু

ঈশ্বরদী ও আটঘোরিয়ায় সাত হাজার পরিবারের মধ্যে ব্যরিষ্টার জিরুর খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

ঈশ্বরদী (পাবনা) সংবাদদাতাঃ
করোনা পরিস্থিতিতে ঈশ্বরদী ও আটঘোরিয়ায় অসহায় হয়ে পড়া সাত হাজার পরিবারের মধ্যে খেলাঘরের উপদেষ্টা ও আওয়ামী লীগ নেতা ব্যরিষ্টার সৈয়দ আলী জিরু এপর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে খাদ্যসামগ্রী , স্যনিটাইজার, পিপিই ও মাস্ক বিতরণ করেছেন। মঙ্গলবার সকালে এরই ধারাবাহিকতায় আটঘোরিযার একদন্ত ও দেবত্তোর ইউনিয়নে খাদ্যসামগ্রীর সাথে ঈদের উপকরণ বিতরণ করা হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইশারত আলী, আটঘোরিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মাজপাড়া ইউপি’র চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর, দেবত্তোর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নিখিল চন্দ্র, আটঘোরিয়ার সাংগাঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক রাজু আহম্মেদসহ সকল ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং স্থানীয় নেতা-কর্মী ত্রাণ বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন।
খেলাঘরের ঈশ্বরদী শাখার সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক জাকিউল মাওলা সুমন জানান, তরুণ প্রজন্মের নেতা ব্যরিষ্টার জিরু আমাদের অহংকার। এলাকায় সুস্থ আওয়ামী রাজনীতির ধারা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে শিক্ষিত তরুণ সমাজ  ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের নিয়ে তিনি নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন। সুমন বলেন, করোনা পরিস্থিতির উদ্ভব হওযার পর হতেই তিনি ঈশ্বরদী ও আটঘোরিয়ার সাধারণ মানুষের পাশে এসে দাঁড়িযেছেন। মার্চের ২০ তারিখ হতে ৩১মে মার্চ পর্যন্ত খেলাঘরের নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থিদের নিয়ে ঈশ্বরদী পৌর এলাকা, জগন্নাথপুরসহ সলিমপুর ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি এলাকায় স্যনিটাইজার ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া গত ৬ই এপ্রিল হতে ৮ই এপ্রিল পর্যন্ত ঈশ্বরদীর ৩২টি খেলাঘর আসরের মাধ্যমে ঈশ্বরদী উপজেলা ব্যাপী খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।
পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক সুব্রত বিশ্বাস বলেন, হাট-ঘাট, বালুমহল দখল এবং টেন্ডারবাজীর রাজনীতির সাথে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ব্যরিষ্টার জিরুর কোন সম্পর্ক নেই। যেকারণে জননেত্রী শেখ হাসিনার সংস্কার কর্মকান্ডে বিশ্বাসী তরুণ সমাজ আজ জিরু ভাইয়ের অনুগত। সাম্প্রতিক করোনা সময়ে ব্যরিষ্টার জিরুর সহযোগিতা কার্যক্রম তুলে ধরে সুব্রত আরো জানান, ১৪ই এপ্রিল নববর্ষ উপলক্ষে ঈশ্বরদী পুলিশ বিভাগের সদস্য,স্বাস্থ্য কর্মি ও ছিন্নমূল মানুষের মাঝে উন্নতমানের খাবার বিতরণ করেন। ২২শে এপ্রিল রাত্রিকালীল রিক্সাচালক ও হতদরিদ্রদের, ২৭শে এপ্রিল ঈশ্বরদী পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ডে নিম্নআয়ের মানুষদের, ২৮ শে এপ্রিল ৪ নং ওয়ার্ডে কর্মকারপাড়া মন্দিরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে এবং ২রা মে ঈশ্বরদীর হরিজন পল্লীতে ত্রাণ বিতরণ করেন।
ত্রাণ বিতরণের সময় উপস্থিত সবুজকুঁড়ি কিন্ডার গার্টেনের অধ্যক্ষ কবীর আলী জানান, গত ১৩ ও ১৪ ই মে ব্যরিষ্টার জিরু নিজে ঈশ্বরদী ও আটঘোরিয়ার পুলিশ বিভাগের সদস্য, হাসপাতাল দুটিতে কর্মরত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের মাঝে পিপিই, এন-৯৫ মাস্ক, প্রটেকশন গগলস্ ও উন্নতমানের হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করেছেন। তিনি আরো জানান, ১৪ই মে সকালে আলহাজ্ব হাই স্কুল মাঠে এবং বিকেলে বড়ইচারা মাহবুলের খোলায় এক হাজার নিম্নআযের মানুষের মাঝে ঈদ উপহারসহ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হযেছে।
খেলাঘরের সহ-সভাপতি ও যুবলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান তুফান বলেন, জিরু কাকু আমাদের তরুণ প্রজন্মের অহংকার। তিনি আরো জানান, ১৫ই মে তাঁর উদ্যোগে আটঘোরিয়া উপজেলার কয়েকটি এলাকায় সহস্রাধিক অসহায় মানুষের মধ্যে খাদ্রসামগ্রী বিতরণ ছাড়াও সকল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের হাতে ১০টি করে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তুলে দেয়া হয়। এছাড়া ১৬ই মে ঈশ্বরদীর সাহাপুর ইউনিয়নের বাঁশেরবাদা ও আওতাপাড়া এলাকায় হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।
এলাকার তরুণদের নিযে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের সময় ব্যরিষ্টার জিরু বলেন, এগুলো সরকারি সহযোগিতা নয়। আমার সহধর্মিনীও একজন ব্যাংকার। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে রাজনীতি করি। জননেত্রী শেখ হাসিনার সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন বাস্তবায়নে এই দুঃসময়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। করোনা পরিস্থিতিতে দেশ আজ চরম সংকটের মুখোমুখি। কোনকিছুর বিনিময়ে নয়, এই সংকটকালে দেশের মানুষকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা আপ্রাণ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। জননেত্রীর হাতকে শক্তিশালী করার জন্যই আমার এই ক্ষুদ্র প্রয়াস।