প্রধান মেনু

করোনাজয়ী ডা: মিশুকে কর্মস্থলে স্বাগত জানালেন বিএমটিপি নেতৃবৃন্দ

বগুড়া জেলা প্রতিনিধি: কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে নিজ বাসা এবং পরবর্তীতে শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থেকে করোনা জয় করে সুস্থ হয়ে কাজে যোগদান করায় বগুড়া সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা স্বাস্থ্যবিভাগের সর্বজনপরিচিত করোনা মোকাবেলায় বগুড়াতে সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে শুরু থেকে কাজ করা ডা: সামির হোসেন মিশু কে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে নতুন উদ্দ্যোমে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজের লক্ষ্যে তাকে স্বাগত জানান বঙ্গবন্ধু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদ (বিএমটিপি) বগুড়া জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ।
শনিবার দুপুরে শহরের জলেশ^রীতলা সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ে বিএমটিপি বগুড়া জেলা শাখার পক্ষে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান সংগঠনের সভাপতি মোজাফ্ফর হোসেন বাদল এবং সাধারণ সম্পাদক ডেন্টিস্ট সুজিত কুমার তালুকদার। এসময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহ-সভাপতি শফিউজ্জামান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আপেল মাহমুদ ও রতন কুমার রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক যথাক্রমে আল-আমিন এবং মুজাহিদুল ইসলাম সাগর, দপ্তর সম্পাদক জনি মিয়া, আব্দুর রহমান শেখ রানা, আরিফুল ইসলাম তুহিন, শুভ সরকার বাপ্পী, আমিরুল ইসলাম, আব্দুল কাদের প্রমুখ। ফুলেল শুভেচ্ছা পরবর্তী সংগঠনের সা: সম্পাদক এবং ডেন্টিস্টস্ সোসাইটি অব বাংলাদেশ (ডিএসবি) রাজশাহী রিজিওন এর সহ-সভাপতি সুজিত তালুকদারের ছোট ভাই চিত্রশিল্পী সুমির তালুকদারের নিজ হাতে আঁকা ডা: মিশুর একটি সুন্দর পোট্রেট ছবি তার হাতে তুলে দেওয়া হয়। বিএমটিপি বগুড়ার সম্পাদক সুজিত কুমার তালুকদার সাথে কথা বললে তিনি জানান, ডা: মিশু সদর উপজেলার স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্ব পালনের সাথে সাথে একাধারে সফলতার সাথে বিএমএ বগুড়ার কোষাধ্যক্ষ এবং স্বাচীপ বগুড়ার সভাপতি হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বগুড়াতে শুরু থেকে করোনা মোকাবেলায় সম্মুখযোদ্ধা হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন গরীবের ডাক্তার খ্যাত ডা: সামির হোসেন মিশু তাই সাধারণ মানুষের স্বার্থে তার সুস্থ থাকাটা খুব জরুরী। সৃষ্টিকর্তার অশেষ কৃপায় তিনি করোনামুক্ত হওয়ায় সংগঠনের পক্ষ থেকে তারা ডা: মিশু কে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান এবং পুনরায় ঐক্যবদ্ধভাবে কাজের লক্ষ্যে পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। সেই সাথে তার অনুপস্থিতিতেও বিএমটিপি’র টেকনোলজিস্টরা যে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালন করেছে তার জন্যে ডা: মিশু বিএমটিপি নেতৃবৃন্দদেরও ধন্যবাদ জানান। উল্লেখ্য, করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সকলকে করোনা মোকাবেলায় এগিয়ে আসার উদ্বার্ত আহব্বান জানিয়েছিলেন, যার ধারাবাহিকতায় দেশব্যাপী বিএমটিপি’র সেচ্ছাসেবী টেকনোলজিস্টরা নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে টেকনোলজিস্ট স্বল্পতার প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে করোনার নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষার কাজে নিজেদের নিয়োজিত করে যাদের মাঝে বগুড়া অন্যতম। বর্তমানে বগুড়াতে গতানুগতিক টেকনোলজিস্টদের সহায়ক হিসেবে বিনা স্বার্থে শুধুমাত্র সদরেই বিএমটিপি বগুড়ার সম্পাদক সুজিতের নেতৃত্বে প্রায় ১৭ জন সেচ্ছাসেবী টেকনোলজিস্ট শিডিউল অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছেন এবং যারা করোনার প্রকোপ শেষ না হওয়া পর্যন্ত মাঠে থাকবেন মর্মে প্রতিশ্রুতিবন্ধ।