প্রধান মেনু

গুরুদাসপুরে শাপলা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ!

গুরুদাসপুর প্রতিনিধি.
নাটোরের গুরুদাসপুরে চাহিদা বেড়েছে জাতীয় ফুল শাপলা ও তার লতির। উপজেলার হাড়িভাঙ্গা বিল থেকে দিনমজুর ইসমাইল হোসেন শাপলা ফুল সংগ্রহ করে বাজারে বিক্রি করেন। জনপ্রিয় হওয়ায় প্রতিদিন গড়ে তার আয় হয় ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা। ফুলসহ ছয়টি লতি বিক্রি করেন ৫ টাকায়। আবার শাপলার ৫টি ফল (ঢ্যাপ) ১০ টাকায় বিক্রি করেন উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামের এই দিনমজুর।
ইসমাইল হোসেন জানান, প্রতিদিন দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিল থেকে শাপলা সংগ্রহ করেন এবং ভোর ৬টার দিকে তিনি স্থানীয় চাঁচকৈড় বাজারে শাপলা বিক্রি করতে আসেন। বাজারে আনার সাথে সাথে তার শাপলা বিক্রি হয়ে যায়। এতে তার ৩ মেয়েসহ অভাবক্লিষ্ট ৫ সদস্যের সংসার চলে যাচ্ছে অনায়াসে।
শাপলার লতি কিনতে আসা ইট ব্যবসায়ী আমজাদ হোসেন ও মৎস্যজীবি কফিল উদ্দিন জানান, শাপলার লতি তরকারি হিসেবে সুস্বাদু এবং দামেও সাশ্রয়ী। বর্তমানে সবজির বাজার খুব চড়া। তাই শখ করেই শাপলার লতি কিনে থাকেন। তাছাড়া শাপলার ফুল শিশুদের কাছেও খুব প্রিয়।#