প্রধান মেনু

চলনবিলে জনদুর্ভোগ থেকে রক্ষা পেয়েছেন হাজার হাজার মানুষের

লিপন সরকার চলনবিল প্রতিনিধি ঃ
সিরাজগঞ্জের চলনবিল এলাকার তাড়াশ উপজেলার বারুহাস-ধোপাগাড়ী ও রানীদিঘী-লাউশন সড়ক সংস্কারের ফলে হাজার হাজার মানুষ জনদুর্ভোগ থেকে রক্ষা পেয়েছেন। ওই সড়ক নির্মান হওয়ার ফলে এখন এলাকাবাসি মহানন্দিত। এই সড়ক সংস্কার হওয়াতে এ অঞ্চলের বসবাস করা লোকজনর জীবনমান পাল্টে যাচ্ছে। সড়কের কাজগুলোর গুনগত মান ভালো হওয়ায় প্রসংসা করছেন স্থানীয়রা।
জানা গেছে, তাড়াশ উপজেলার তালম ইউনিয়নের ধোপাগাড়ী থেকে বারুহাস সড়ক একটি জনগুরুত্বপুর্ন সড়ক। এ সড়কটি দীর্ঘ দিন সংস্কার না হওয়ায় বেহাল অবস্থা বিরাজ করছিল। ফলে ওই এলাকার কৃষি পণ্য পরিবহন ও ব্যবসা বাণিজ্যের জন্য এলাকাবাসীকে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এমন সময়ে স্বাধীনতার পর এই প্রথম সড়ক দুটি পাকাকরণ হলো। বারুহাস-ধোপাগাড়ী আড়াই কিলোমিটার সড়ক ২ কোটি ১৩ লাখ ৮৯ হাজার টাকা ব্যায়ে সংস্কারের কাজ পান নাটোরের বনপাড়ার মীম ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং লি: ও পাকা সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় বারুহাস ইউনিয়নের রানীদিঘী-লাউশন সড়কের প্রায় ১ কিলোমিটার সড়ক ৬৪ লক্ষ ৭হাজার টাকা প্রাক্কলন ব্যায়ে সাজ ট্রেডিং নামের সিরাজগঞ্জের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ পান। বর্তমানে ওই দুটি জনগুরুত্বপুর্ন সড়কের কাজ শেষ করেছেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলো।
তাড়াশ উপজেলা প্রকৌশলী অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আতাউর রহমান ও সার্ভেয়ার মো. নাজমুল হক বারুহাস-ধোপাগাড়ী ও রানীদিঘী-লাউশন কাজের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রাশেদুল হাসান ও সার্ভেয়ার নাজমুল হক তদারকি করেছেন।
তালম ইউনিয়নের গাবরগাড়ী গ্রামের ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম জানান, দীর্ঘ দিন সড়কটির সংস্কার না হওয়ায় ফসল পরিবহনে দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। এ ছাড়া জরুরি প্রয়োজনে এ দুটি সড়কে গাড়ি চলাচল না করায় তাদের কষ্ট করতে হতো। এখন দ্রুত ও স্বল্প সময়ে বারুহাস বা পাশের সিংড়া উপজেলায় যাতায়াতের সুবিধা হলো। আমরা খুবই খুশি।