প্রধান মেনু

প্রশাসনের তথ্য প্রদানে ত্রুটি

চাটমোহর হান্ডিয়ালে আরেক করোনা রোগী শনাক্ত

চাটমোহরে আরেক করোনা (কোভিট-১৯) ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। তথ্য প্রদানের ত্রুটি হয়েছে স্বীকার করে চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকার মোহাম্মদ রায়হান রবিবার সকাল ৯.২০ মিনিটে দৈনিক চলনবিলকে করোনা রোগী শনাক্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, উপজেলার হান্ডিয়াল ইউনিয়নের সোনাবাজু ভিটাপাড়ার মো. আব্দুল প্রামাণিক এর ছেলে মো. রেজাউল করিম (৪০)। সে নারায়নগঞ্জ থেকে সম্প্রতি রাতের আঁধারে বাড়ীতে আসে। তিনি নারায়নগঞ্জে গামেন্টস্-এ কাজ করতো। নিয়ে চাটমোহরে ২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হলো।
এ ব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকতা ডা. শুয়াইবুর রহমান জানান, আমাদের মেডিকেল টিম ঘটনাস্থলে যাচ্ছে। রোগীর বর্তমান পরিস্থিতি অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
এদিকে বৃহস্পতিবার উপজেলা মূলগ্রাম ইউনিয়নের সুইগ্রাম-বামনগ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে টাইলস্ মিস্ত্রী জহুরুল ইসলামকে পাবনার জেলার প্রথম করোনা রোগী হিসেবে শনাক্ত করে পাবনার সিভিল সার্জন। জহুরুল নারায়নগঞ্জের চাষারা উপজেলায় টাইলস্ মিস্ত্রির কাজ করতো। জহুরুলকে শুক্রবার ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। তবে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে বলে জানা গেছে। জহুরুলের বাড়ী এবং তার শ্বশুর বাড়ীর ১৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাদের পরীক্ষার রেজাল্ট এখনও আসেনি। বৃহস্পতিবার রাত থেকে চাটমোহর উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করেছে প্রশাসন। কিন্তু অধিকাংশ মানুষকে লকডাউন ভাঙ্গার প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। উপজেলার সকল হাট বন্ধ রাখার ঘোষণা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেয়া হলেও রাতের আঁধারে হাট বসানো হচ্ছে। ট্রাক ভর্তি মালামাল ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে যাচ্ছে। এতে করে মানুষের মধ্যে করোনা আক্রান্তের ঝুকি বাড়ছে বলে সচেতন মহল মনে করছেন।