প্রধান মেনু

চুমুতে ছড়াতে পারে করোনাভাইরাস!

ভ্যালেন্টাইনস ডে দুয়ারে কড়া নাড়ছে। প্রেমিক-প্রেমিকার ঘনিষ্ঠ হওয়ার এই তো সময়। শহরের বিনোদন পার্কে, শপিং মলে, আড়ালে নিভৃতে ঘনিষ্ঠ যুগলরাই ভয় ধরাচ্ছে চিকিৎসকদের মনে। প্রেম দিবসে ঠোঁট ঠোঁট রেখে ঘনিষ্ঠ চুম্বন। একজনের লালারস অন্যের মুখে গেলে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বাড়িয়ে তুলবে না তো? এমনই প্রশ্ন ভাবিয়ে তুলছে নাক-কান-গলার রোগের বিশেষজ্ঞদের। এই ভাইরাস ছোঁয়াচে। দ্রুত তা সংক্রামিত হয় অন্যের দেহে। সেক্ষেত্রে ঠোঁটে ঠোঁট স্পর্শ করলে তো কথাই নেই! প্রেমিক-প্রেমিকাদের প্রতি চিকিৎসকদের নিদান, করোনার বাড়াবাড়িতে এবছর ভ্যালেন্টাইনস ডে-তে চুমু না খাওয়াই শ্রেয়। মুখের লালা থেকে মুহূর্তে ছড়িয়ে যেতে পারে ভাইরাস।

বেলভিউ হাসপাতালের ইএনটি বিশেষজ্ঞ ডা. সুদীপ্ত চন্দ্র জানিয়েছেন, হাঁচি কাশি থেকে তো অবশ্যিই, মুখের লালারস থেকে ছড়াতে পারে করোনা ভাইরাস। তাঁর কথায়, ভাইরাল অসুখের প্রকোপে অনেকের চোখ থেকে জল পড়ে। কোনও ভাবে তা যদি অন্যের সংস্পর্শে আসে তা থেকেও ছড়াতে পারে অসুখ। এমতাবস্থায় প্রেম দিবসে বেশি বাড়াবাড়ি না করাই শ্রেয় বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক।

তাঁর কথায়, প্রেম দিবসে মনের মানুষটির সঙ্গে দেখা করুন। তবে ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে অবশ্যই মুখে মাস্ক পড়ে ।

ইতিমধ্যে করোনা নিয়ে কলকাতার মুকুন্দপুরে আরএনটেগোর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এক। যদিও চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তাঁর শরীরে নোভেল করোনা ভাইরাস বা এনসিওভি২০১৯ নেই। বরং কম বিপজ্জনক হিউম্য়ান করোনা ভাইরাস এইচসিওভি ২২৯ই পাওয়া গিয়েছে তাঁর লালারসে।

ইএনটি বিশেষজ্ঞ ডা. সুদীপ্ত চন্দ্র জানিয়েছেন, ঋতু পরিবর্তনের এই সময়টায় তিন ধরনের ভাইরাস সক্রিয় হয়ে ওঠে। যার মধ্যে করোনা ভাইরাস ছাড়াও রয়েছে অ্য়াডিনো ভাইরাস এবং রাইনো ভাইরাস। এ বছর করোনা আতঙ্কে কাঁপছে গোটা দেশ। চীনে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৯০০ ছাড়িয়ে গেছে।

অপেক্ষাকৃত কম বিপজ্জনক হলেও সাধারণ করোনা ভাইরাস ঠেকানোর কোনও ওষুধ নেই। তবে উপশমের উপায়? ডা. সুদীপ্ত চন্দ্র জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাস আক্রমণ করলে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। করোনা ভাইরাস ট্রিটমেন্ট করার নির্দিষ্ট কোনও ওষুধ নেই। পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে।

ভাইরাস ঠেকাতে আপাতত নাকে মাস্ক পড়ে থাকাই শ্রেয়। নাকে হাত দিলেও সঙ্গে সঙ্গে তা ধুয়ে ফেলতে বলছেন চিকিৎসকরা।