প্রধান মেনু

নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি কমিটি গঠনের জের ধরে সংঘর্ষে ছাত্রলীগ নেতা সহ আহত ৬ জন

নাটোর প্রতিনিধি
ছাত্রলীগের বাগাতিপাড়া উপজেলা কমিটি গঠন নিয়ে বিরোধের জের ধরে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ৬জন আহত হয়েছে। এসময় ৪টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়। রবিবার বিকেলে উপজেলা সদরের মালঞ্চি রেলগেটের পার্শে এঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
ছাত্রলীগ সুত্রে জানা যায় , বাগাতিপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠন উপলক্ষে গত ১৪ সেপ্টেম্বর জেলা ছাত্রলীগ বাগাতিপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করে। সে অনুযায়ী ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সম্মেলনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে। কিন্তু হঠাৎ করে ছাত্রলীগ গত ১৩ সেপ্টেম্বর সম্মেলন স্থগিত ঘোষণা করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি ১৪ সেপ্টেম্বর শনিবার বাগাতিপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন করে। এই সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল। সম্মেলনে আতিক হাসান বিদ্যুৎকে সভাপতি ও শহিদুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়। অপরদিকে এই কমিটির বিপরিতে রবিবার জেলা ছাত্রলীগ আগামী এক বছরের জন্য বাগাতিপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদে নাজমুল হাসান নাহিদ, শিহাব মাহমুদ সোহেল সাধারণ সম্পাদক করে একটি পাল্টা কমিটি ঘোষণা করে।
আহত নাজমুল হাসান নাহিদেও ভাই সোহাগ অভিযোগ করেন, জেলা ছাত্রলীগের কাছ থেকে উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন নিয়ে রবিবার বিকেলে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার রহামানের সাথে সাক্ষাৎ করে সাবেক সংসদ সদস্য মমতাজ উদ্দিনের কবর জিয়ারতের উদ্দেশ্যে বের হন। তাদের মোটর সাইকেল বহরটি মালঞ্চি রেলগেট এলাকায় পৌছিলে অপর কমিটির সভাপতি আতিক হাসান বিদ্যুৎ ও সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলামের সমর্থকেরা তাদের উপর হামলা চালায়। এসময় উভয় পক্ষের সংঘর্ষে জেলা ছাত্রলীগ ঘোষিত কমিটির সভাপতি নাহিদ হোসেন নাহিদসহ ৬জন আহত হয়। আহতদেও মধ্যে নাহিদকে নাটোর সদর হাসপাতালে এবং জনি ও রাসেল সহ ৫জনকে বাগাতিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্ের নেয়া হয়। এদের মধ্যে নাহিদের অবস্থা আশংকা জনক । সোহাগ অভিযোগ করেন . এসময় আতিক সমর্থকেরা নাহিদ সমর্থকদেও ৪টি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে।
জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রাকিবুল হাসান জেমস ও সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম মাসুম তাদের পাশ কাটিয়ে অবৈধভাবে কমিটি গঠনের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুলকে দায়ী করেনএবং ছাত্রলীগ কর্মিদের ওপর হামলার নিন্দা জানান। হঠাৎ করে সম্মেলন স্থগিতের বিষয়ে তারা বলেন. ওইদিন সম্মেলনের ব্যাপারে আপত্তি তোলেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার আলী। এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগ ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পরামর্শে পরবর্তীতে সমন্বয় করে সম্মেলন ও কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।অপরদিকে আতিক হাসান বিদ্যুৎ এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নাহিদ সমর্থকেরাই আগেহামলা চালিয়েছিল। এতে তার কয়েকজন কর্মি আহত হয়।
এ বিষয়ে বাগাতিপাড়া থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম সংঘর্ষেও সত্যথা স্বীকার কওে বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। মালঞ্চি বাজারে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া ৪টি ক্ষতিগ্রস্থ মোটরসাইকেল উদ্ধার করে থানায় নেয়া হয়েছে। তবে এঘটনায় এখনো কোন মামলা হয়নি।