প্রধান মেনু

নিখোঁজের ৪ দিন পর ওয়ারড্রবের ড্রয়ারে মিললো শিশুর লাশ

পাবনার ফরিদপুরে নিখোঁজের ৪ দিন পর শিশু সুমনার (৪) লাশ উদ্ধার হয়েছে। প্রতিবেশীর পরিত্যাক্ত বাড়ির বারান্দার ওয়ারড্রবের ড্রয়ার থেকে মঙ্গলবার এগারোটার দিকে এই লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সুমনা উপজেলার বনওয়ারীনগর ইউনিয়নের সোনাহারা গ্রামের সজীব আহমেদের কন্যা। এ ঘটনায় ফরিদপুর থানা পুলিশ এরশাদ নামে একজন কাঠমিস্ত্রিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার সকালে সুমনা নিখোঁজ হয়। ঐদিন তার বাবা ফরিদপুর থানায় এ ঘটনায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপরে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও সুমনাকে পাওয়া যায়নি। হঠাৎ মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় বাসিন্দারা ঢাকায় বসবাসরত রবিউল নামের এক ব্যক্তির পরিত্যক্ত বাড়িতে কোনো কিছু পচে যাওয়ার দুর্গন্ধ পায়। তখন স্থানীয় বাসিন্দারা খোঁজাখুঁজি করে রবিউল ইসলামের পরিত্যক্ত বাড়ির বারান্দার একটি ওয়ারড্রবের ড্রয়ারের ভিতরে নিখোঁজ শিশুর লাশ দেখতে পায়। তখন তারা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। এদিকে পরিত্যক্ত তালাবদ্ধ বাড়িটির চাবি থাকতো রবিউলের শ্যালক এরশাদ আলীর কাছে। এতে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এরশাদ আলীকে আটক করেছে। এরশাদ ওই গ্রামের রইজ প্রামাণিকের ছেলে।
ফরিদপুর থানার ওসি আবুল কাশেম আজাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, চার দিন আগে নিখোঁজ হওয়া একটি শিশুর লাশ প্রতিবেশী এক ব্যক্তির পরিত্যক্ত বাড়ি থেকে পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এরশাদ নামে একজন কাঠমিস্ত্রিকে থানা হেফাজতে নেয়া হয়েছে। পরিত্যক্ত বাড়িটি এরশাদ দেখাশোনা করত।