প্রধান মেনু

প্রতিদিন সমাজসেবক রনির খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অব্যাহত

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের প্রভাবে সারাবিশ^ এখন টালমাটাল। এই ভাইরাসের সংক্রমণে বাংলাদেশের প্রায় স্থানেই লকডাউন চলছে। দিনদিন বাড়ছে আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। দেশের নি¤œ আয়ের খেটে খাওয়া দিনমজুর মানুষরা সচেতনতা বজায় রাখতে গিয়ে স্ব স্ব ঘরে অবস্থান করছেন। এসময় সবাইকে ঘরে থাকার অনুরোধ জানিয়ে নাটোরের গুরুদাসপুরের নি¤œ আয়ের অসহায় মানুষদের খুঁজে সমাজসেবক সরদার আব্দুস সালাম রনির উদ্যোগে প্রতিদিন বিভিন্ন আইটেমের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রয়েছে বলে জানা গেছে।
জানা গেছে, দিন এনে দিন খাওয়া নি¤œ আয়ের গরীব দুস্থদের খুঁজে খুঁজে প্রতিদিন ৫০জনকে মাথাপিছু আড়াই কেজি চাল, দুই কেজি আটা, এক কেজি চিড়া, এক কেজি আলু, এক কেজি ডাল, বিস্কিট, কেক, সাবান বিতরণ করছেন এই সমাজসেবক। মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নিজেই বাড়িবাড়ি গিয়ে ওই খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন পৌরসদরের খামারনাচকৈড় মহল্লার হাজী খাদেমুল ইসলামের ছেলে সরদার আব্দুস সালাম রনি। করোনা মোকাবেলায় তিনি দেশ ও মানুষের কল্যাণে নিত্যনতুন কাজ করে চলেছেন। অথচ ফেসবুকের সেলফিবাজদের তান্ডবে এ পর্যন্ত তার খাদ্যসামগ্রী বিতরণের কোনো সেলফি বা ছবি ফেসবুকে পোষ্ট করা হয়নি বলে তিনি জানান।
এক স্বাক্ষাৎকারে এই সমাজসেবক বলেন- ‘করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ও মানবতার জয়ের লক্ষ্যে নিজেই দুস্থদের বাড়িবাড়ি গিয়ে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করছি। এসময় সবাইকে ঘর থেকে বাইরে বের হতে নিরুৎসাহিত করছি। চলমান এই সংকট নিরসন না হওয়া পর্যন্ত মানুষের মাঝে খাদ্যসমাগ্রী বিতরণ অব্যাহত থাকবে।’ রনি আরো বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে সবাইকে এই মহামারীর যুদ্ধে সাহসের সাথে সফল হওয়ার আহ্বান জানানো হচ্ছে।’
এদিকে মহামারী করোনার বিস্তার ঠেকাতে উপজেলার প্রতিটি হাটবাজার, রাস্তাঘাটে জনসমাগম কমে গেছে। করোনার সংক্রমণ থেকে নিজেদের বাঁচাতে কেউ ঘর থেকে বাইরে বের হতে চাননা না। তবে দিন এনে দিন খাওয়া পরিবারের সদস্যরা শ্রম বিক্রি করতে যেতে পারছেন না। ফলে কর্মহীন হয়ে পড়া উপজেলার বিভিন্ন চা দোকানী, প্রান্তিক শ্রমিক, অটোরিকসা ভ্যান চালক, পত্রিকার হকার, ভিক্ষুকসহ হতদরিদ্র মানুষের জীবনে নেমে এসেছে হাহাকার। চরম দুর্বিসহ জীবনযাপন করতে হচ্ছে নি¤œ আয়ের এসব মানুষগুলোকে