প্রধান মেনু

বাবার কাছ থেকে টাকা আদায়ের জন্য ছেলের অপহরণ নাটক

নাটোর প্রতিনিধি
নাটোরের লালপুর বাবা আইয়ুব আলীর কাছ থেকে টাকা আদায়ের জন্য নিজেই অপহরণ নাটক সাজায় ছেলে হিমেল । ২দিন অপহরণের নাটকের পর ড্রাইভারের সহায়তায় নিজের হাতপা বেধে রাস্তায় পড়ে থাকে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু বিধি বাম । পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে বের হয়ে আসে হিমেলের নাটক করার সব কথা। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় আলোচনার ঝড় চলছে। ঘটনাটি ঘটে লালপুর উপজেলার আহম্মেদপুর মহাদেবপাড়া এলাকায়। হিমেল ওই গ্রামের আইয়ুব আলীর ছেলে।হিমেলের পরিবার ও পুলিশ সুত্রে জানা যায়, লালপুর উপজেলার আহম্মেদপুর মহাদেবপাড়ার আইযুব আলীর ছেলে হিমেল । বাবা – মায়ের সাথে অভিমান করে ১৬ জুলাই ভোর বেলায় কুইজিপুকুর মোড়ে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। পরে বাড়িতে না ফিরে ১৭ জুলাই সন্ধ্যার পরে বাবা আইযুব আলীর মোবাইলে নিজের মোবাইল থেকে কন্ঠ পরিবর্তন করে ৩ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এ দিকে আইযুব আলী ছেলে বাড়ি না ফেরায থানায় অবহিত করলে পুলিশ হিমেলকে উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করে। হিমেল নাটোরে একটি আবাসিক হোটেলে ওঠে ৫ শ টাকা একটি ছেলেকে দিয়ে নিজের হাত পা দড়ি দিযে বেঁধে মোবাইলে ছবি তুলে নেয়। এ ছবি বাড়িতে ও অÍীয়দের দিয়ে আবারও দাদার ফোনে ফোন দিয়ে টাকা চায়। ১৮ জুলাই ফোন দিয়ে বাবাকে বলে আপনার ছেলেকে নান্টুর আম বাগানে পাবেন রাতে। এ কথা বলে হিমেল নাটোর থেকে দাশুরিয়া গামী একটি হলুদ পিকআপ ৭ শ টাকা ভাড়া মিটিয়ে রাত ১১ টার দিকে চাঁদপুর এলাকায় পৌঁছেই পিকআপের ড্রাইভারকে ভয় দেখিয়ে নিজের হাতপা বেধে নিয়ে রাস্তার পার্শ অচেতন হয়ে পড়ে থাকার অভিনয করে। হিমেলের আÍীয স্বজন রাস্তা থেকে তুলে এনে গোপালপুর মুক্তার জেনারেল হাসপাতাল ও পরে লালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সোমবার লালপুর থানা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এ নাটক বের হয়ে আসে।
এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন লালপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো: সেলিম রেজা। হিমেলের কথামতো তার অভিমান ভাঙ্গতে বাবার কাছ থেকে টাকা নেওয়ার জন্য এই অপহরণ নাটক সাজায়।