প্রধান মেনু

বৃক্ষরোপন করা আমাদের নাগরিক দায়িত্ব – পাবনা সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজে রেজাউল রহিম লাল

পাবনা প্রতিনিধি : পাবনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল বলেছেন- সারা বিশ্বে জলবায়ুর ক্ষতিকর প্রভাব পরছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জলবায়ুর ক্ষতিকর প্রভাবরোধে জাতিসংঘসহ বিশ্বনেতৃবৃন্দর প্রতি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে জোড়ালো আবেদন করছেন। বাংলাদেশে প্রয়োজনের তুলনায় বন কম আছে। আমাদের সবার উচিত সাধ্যমত বৃক্ষরোপন করে একটি সুন্দর সবুজ উন্নত দেশ গড়া । বৃক্ষরোপন করা আমাদের নাগরিক দায়িত্ব।
তিনি আরো বলেন- একটি সুশিক্ষিত জাতি গঠন ছিল বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন। বঙ্গবন্ধু কাজ শুরু করেছিল কিন্তু সেটা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে পারেন নাই। পিতা সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষিত জাতি গঠনে ব্যাপক কর্মসুচী গ্রহন করেছেন। যার ফলে আজকের এই অত্যাধুনিক উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ও ওয়াই-ফাই সম্পন্ন মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম । প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় সরকারের পাশাপাশি পাবনা সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজর অধ্যক্ষের মত দায়িত্বশীল হওয়া উচিত এতে প্রতিষ্ঠান এবং দেশ উভয়ই সমৃদ্ধ হবে।
পাবনা জেলার পরিষদ আরো বলেন- পাবনা সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ এর রাত্রি বেলার গেট ও বাউন্ডারী ওয়ালের রঙ্গিন আলোক সজ্জা ও বৃক্ষরাজী পরিচ্ছন্ন পরিবেশে আমি ব্যাপক মুগ্ধ। এটা দেখে মনে হয় সিঙ্গাপুরে কোন এক জায়গায় অবস্থান করছি।
পাবনা সংবাদ পত্র পরিষদের সভাপতি আব্দুল মতীন খান বলেন- পাবনা সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ বর্তমানে পাবনার মধ্যে একটি মডেল কলেজ। এখানকার পরিবেশ আমাদের পাবনা বাসীর মুগ্ধ করে।
রোববার সকালে পাবনা সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ মিলনায়তনে বৃক্ষরোপন কর্মসুচী এবং অত্যাধুনিক উচ্্চ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ও ওয়াই-ফাই সম্পন্ন মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম ও কনফারেন্স রুমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কলেজ অধ্যক্ষ ইঞ্জি: মো. জমিদার রহমান এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও বিশিষ্ট সাংবাদিক আব্দুল মতীন খান। আরো উপস্থিত ছিলেন চীফ ইনস্ট্রাকটর মো. শাহ আলম, মো. জাকির হোসেন, নূর মো. আনোয়ার রশিদ, ইনস্ট্রাকটর আলী আকবার মিঞা, রতন কুমার রায়, শাহানারা খোন্দকার, ফারহানা খালেদ, খায়রুল ইসলাম মোড়ল, মীর মো. আবু জাফর, কামরজ্জামান, কামরুন্নাহার সহ বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান,শিক্ষক-শিক্ষিকা,কর্মকর্তা-কর্মচারী ও প্রশিক্ষণার্থী।