প্রধান মেনু

ভাঙ্গুড়ায় করোনা ভাইরাস এড়াতে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা

সারাদেশের প্রতিটি মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এই ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকতে এরইমধ্যে স্বাস্থ্য দপ্তর সহ বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি দপ্তর জনগণের মধ্যে স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য নানা পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে সবাইকে কিছুক্ষণ পরপর সাবান বা হ্যান্ডওয়াশ দ্বারা হাত ধৌত করতে বলা হচ্ছে। তাই পাবনার ভাঙ্গুড়া পৌর শহরের বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে নাগরিকদের হাত ধোয়ার জন্য সাবান ও পানির ব্যবস্থা করেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। ভাঙ্গুড়া পৌর শহরের বাসিন্দা সহ বাসস্টেশন, রেলস্টেশন ও নৌঘাটে আগত লোকজনের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য ভাঙ্গুড়া পৌরসভা নিজস্ব অর্থায়নে এই ব্যবস্থা করেছে। আজ সোমবার ভাঙ্গুড়া পৌরসভার মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেল শহরের অন্তত ১০ টি জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে ৫০০ লিটার পানির ট্যাংক ও সাবান রেখে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। পরিস্থিতি বিবেচনা করে পরবর্তীতে এই কার্যক্রম আরো সম্প্রসারিত করা হবে জানিয়েছে পৌর কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, পৌর শহরের ভাঙ্গুড়া বাজারের বাসস্ট্যান্ড, জিরো পয়েন্ট (বকুল তলা মোড়), থানার সামনে, কাঁচা বাজার ও মাছের বাজারে পানির ট্যাংক ও সাবান উন্মুক্তভাবে রেখে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া শহরের শরৎনগর বাজারের রেলস্টেশন, চার রাস্তার মোড়, ডাকবাংলো মোড়, কলেজ মোড় ও কাঁচা বাজারে পানির ট্যাংক ও সাবান রেখে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এসব স্থানে পৌর শহরের বাসিন্দা সহ রেল ও বাস স্টেশনে আগত যাত্রীরা হাত ধৌত করছে। করোনা ভাইরাস মুক্ত থাকতে পানির ট্যাংকে নানা পরামর্শমূলক নির্দেশনা লেখা রয়েছে। ভাঙ্গুড়া পৌরসভার বাসিন্দা হেলাল উদ্দিন খান বলেন, সাধারণ মানুষ করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে রয়েছে। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ও স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে এই ভাইরাস থেকে অনেকটাই মুক্ত থাকা যায়। তাই ভাঙ্গুড়া পৌরসভার মেয়র সাধারণ মানুষকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় পানি ও সাবানের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। এখন শহরে অবস্থান করা মানুষ কিছুক্ষণ পরপর এসব স্থানে গিয়ে হাত ধৌত করে স্বাস্থ্য দপ্তরের নির্দেশনা মেনে চললে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকবে বলে আশা করি। এমন উদ্যোগ নেওয়ার জন্য পৌর মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেলকে সাধুবাদ জানাই।
ভাঙ্গুড়া পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম হাসনাইন রাসেল বলেন, ‘পৌর এলাকার বাসিন্দা সহ শহরে আগত প্রতিটি নাগরিককের কাছে সরকার প্রদত্ত সুযোগ সুবিধা পৌঁছে দিতে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছি। এরই ধারাবাহিকতায় মানুষকে সুস্থ ও ভালো রাখাতে শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পানি ও সাবানের ব্যবস্থা করেছি। সাধারণ মানুষ ভালো থাকলেই আমরা ভালো থাকবো।’