প্রধান মেনু

ভাঙ্গুড়ায় পিপিই পেল গ্রামপুলিশ

ইউনিয়নের প্রতিটি গ্রামে নিরাপত্তা দিতে রাতদিন ছুটে বেড়ান গ্রামপুলিশ সদস্যরা। করোনা পরিস্থিতিতে তাদের দায়িত্ব বেড়ে গেছে অনেক। ভাইরাস সংক্রমণ থেকে নিজেদের রক্ষায় তাদের ছিলনা পর্যাপ্ত ব্যবস্থা। এ অবস্থায় পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলা প্রশাসন গ্রামপুলিশ সদস্যদের জন্য বরাদ্দ করেছে পার্সোনাল প্রটেক্টিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিপি)।

সূত্র জানায়, ভাঙ্গুড়া উপজেলায় মোট ছয়টি ইউনিয়ন। সেখানে কর্মরত রয়েছেন ৫৮ জন গ্রামপুলিশ। করোনা পরিস্থিতিতে বিভিন্ন সড়ক ও গ্রামে যানবাহন চলাচল ও মানুষের অহেতুক ঘোরাঘুরি নিয়ন্ত্রণ করছেন তারা। মাঠ পর্যায়ের এসব কর্মীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি বিবেচনায় পিপিই সরবরাহ করা হয়েছে।
পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ নায়েব আলী বলেন, ‘ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে প্রতিটি গ্রামের খোঁজ রাখতে হয়। প্রায় সবকাজে থাকতে হয়। এখন পিপিই পেয়ে অনেকটাই নিরাপদে কাজ করতে পারবো।’

ভাঙ্গুড়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আজিদা পারভীন পাখি বলেন, ‘প্রত্যেকটা মানুষের জীবনের গুরুত্ব আছে। দায়িত্ব পালনের সময় চিকিৎসক, পুলিশ ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের মতোই পিপিই প্রয়োজন গ্রামপুলিশের জন্য।’