প্রধান মেনু

ভাঙ্গুড়ায় বিদেশ ফেরত যুবক হোম কোয়ারেন্টাইনে

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় সিঙ্গাপুর ফেরত এক যুবককে হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখেছে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকরা ওই যুবকের বাড়ি গিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেন। যুবকের বাড়ি উপজেলার পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের রাঙ্গালিয়া গ্রামে।

জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে ওই যুবক সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশে আসে। বাংলাদেশে পৌছানোর পর তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে তাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয় সংশ্লিষ্ট দপ্তর। সে গ্রামের বাড়িতে এসে স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা শুরু করে। স্থানীয় বাসিন্দারা এ বিষয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য দপ্তরকে জানায়। পরে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক ইমরান হোসেন ও আব্দুল হান্নান সহ চার সদস্যের একটি টিম ওই যুবকের বাড়িতে যায়। সেখানে চিকিৎসকরা তার প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে। এতে ওই যুবকের কোনো সমস্যা নেই বলে জানায় চিকিৎসকরা। তবুও স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে আগামী ১৪ দিন পর্যন্ত ওই যুবককে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার ব্যবস্থা করেন। এসময় ওই চিকিৎসকরা বাড়ির অন্য সদস্যদেরও স্বাস্থ্য সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মেনে চলার পরামর্শ দেন।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য পরিদর্শক নুরুল ইসলাম বলেন, একটি মেডিকেল টিম সিঙ্গাপুর ফেরত যুবকের বাড়ি পরিদর্শন করেছেন। টিম ওই যুবকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে সম্পূর্ণ সুস্থতা পেয়েছেন। তাই তাকে হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে আনা হয়নি। তবুও তাকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অধীনে পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে।

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় সিঙ্গাপুর ফেরত এক যুবককে হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখেছে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকরা ওই যুবকের বাড়ি গিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেন। যুবকের বাড়ি উপজেলার পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের রাঙ্গালিয়া গ্রামে।

জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে ওই যুবক সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশে আসে। বাংলাদেশে পৌছানোর পর তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে তাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয় সংশ্লিষ্ট দপ্তর। সে গ্রামের বাড়িতে এসে স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা শুরু করে। স্থানীয় বাসিন্দারা এ বিষয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য দপ্তরকে জানায়। পরে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক ইমরান হোসেন ও আব্দুল হান্নান সহ চার সদস্যের একটি টিম ওই যুবকের বাড়িতে যায়। সেখানে চিকিৎসকরা তার প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে। এতে ওই যুবকের কোনো সমস্যা নেই বলে জানায় চিকিৎসকরা। তবুও স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে আগামী ১৪ দিন পর্যন্ত ওই যুবককে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার ব্যবস্থা করেন। এসময় ওই চিকিৎসকরা বাড়ির অন্য সদস্যদেরও স্বাস্থ্য সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মেনে চলার পরামর্শ দেন।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য পরিদর্শক নুরুল ইসলাম বলেন, একটি মেডিকেল টিম সিঙ্গাপুর ফেরত যুবকের বাড়ি পরিদর্শন করেছেন। টিম ওই যুবকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে সম্পূর্ণ সুস্থতা পেয়েছেন। তাই তাকে হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে আনা হয়নি। তবুও তাকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অধীনে পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে।