প্রধান মেনু

রূপপুর পারমাণবিকের ভূয়া গেটপাস তৈরীকারী ২ প্রতারক গ্রেফতার

চাকুরি দেয়ার নামে রূপপুর পারমাণবিকের ভূয়া গেটপাস তৈরীকারী ২ প্রতারককে রবিবার বিকেলে গ্রেফতার করেছে ঈশ^রদী থানা পুলিশ। বেশ কিছুদিন ধরে প্রতারক চক্রটি পারমাণবিকে চাকুরি দেয়ার নামে লোকজনের টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেয়ার প্রতারণায় লিপ্ত ছিলো। প্রতারণার অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবীর এদের আটক করতে গোপন অনুসন্ধানে শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত রবিবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে মূল প্রতারক ও তার এক সহযোগীকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়েছে। মূল প্রতারক নাটোরের লালপুর উপজেলার বৈদ্যনাথপুর গ্রামের আফসার আলীর পুত্র হাসান আলী (৩১) এবং সহযোগী ঈশ^রদী পৌরসভার বকুলের মোড় এলাকার মনিরুজ্জামানের পুত্র জাকির হোসেন (২৫)। ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সেখ নাসীর উদ্দিন প্রতারক গ্রেফতারের ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন. এদের সাথে আরো কেউ জড়িত আছে কিনা জিজ্ঞাসাবাদে বের করা হবে।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবীর জানান, বেশ কিছুদিন ধরে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে চাকুরি দেযার নামে প্রতারক চক্র সাধারণ মানুষের টাকা-পয়সা হাতিয়ে নিচ্ছিল বলে অভিযোগ আসে। এবিষয়ে গোপনে তদন্ত শুরু করা হয়। চক্রটি কম্পিউটারের সাহায্যে রাশিয়ান বিভিন্ন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সীল ও স্বাক্ষর জাল করে প্রকল্পে প্রবেশের জন্য চাকুরি প্রাথীদের নামের তালিকা তৈরী করতো। এই তালিকা গেটে দেখালে সীল ও স্বাক্ষর সঠিক ভেবে তাদের প্রকল্প এলাকায় প্রবেশের জন্য গেটপাশ ইস্যু করা হতো। গেটপাস নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে পারলেও কর্মস্থলে যে তালিকা থাকতো তাতে চাকুরি প্রার্থীদের নাম থাকতো না। ফলে টাকা-পয়সা খুইয়ে প্রতারিত হয়ে ফিরে আসতে হতো। আরো কোন চক্র প্রতারণার সাথে জড়িত কিনা দ্রুততম সময়ের মধ্যে ঈশ্বরদী পুলিশ তাদেরও সনাক্ত করার জন্য গোপন তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন।