প্রধান মেনু

১৫ দিনে শেষ হবে ধানকাটা গুরুদাসপুরে কাটা হয়েছে মাত্র ৪%

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি.
চলনবিল অধ্যুষিত নাটোরের গুরুদাসপুরে আগাম বন্যার পূর্বাভাসের কারণে ধানকাটা শুরু হয়েছে। ব্যক্তি উদ্যোগের পাশাপাশি অতিরিক্ত পাঁচ শতাধিক শ্রমিক নিয়ে মাঠে নেমেছে উপজেলা প্রশাসন। কিন্তু বোরো ধান পুরোপুরি না পাকার কারণে গত চারদিনে মাত্র ৪% পাকাধান কাটা হয়েছে।
রবিবার উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, গত বছর বিঘাপ্রতি গড়ে ২২ মণ করে হলেও এবারে সাড়ে ২২ মণ করে ধান উৎপাদন হবে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল করিম বলেন, এবার ৪ হাজার ৬শ’ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের বাম্পার চাষ হয়েছে। কিন্তু ব্রি-২৯ ও হাইব্রিড জাতের ধান এখনো পুরোপুরি পাকতে শুরু করেনি। যেটুকু জমির ধান পাকছে সেটুকু কাটা হচ্ছে। এরমধ্যে আরো দুই শতাধিক শ্রমিক আমদানি করা হবে। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে উপজেলার সব মাঠের ধান কৃষকের গোলায় উঠবে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
ইউএনও মো. তমাল হোসেন বলেন, ধানকাটা শ্রমিকদের থাকা, চিকিৎসা এবং শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া চলনবিল অংশের ধানকাটা শ্রমিকদের জন্য তিনজন উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা, তিনজন স্বেচ্ছাসেবক এবং একটি পিকআপ গাড়ী সার্বক্ষণিক ফ্রি সার্ভিসের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।