প্রধান মেনু

১৭ বছরে ডাবল সেঞ্চুরি!

লিস্ট-এ ফরম্যাটে বিশ্বরেকর্ড করলেন মুম্বাইয়ের টিনএজার যশস্বী জায়সবাল। ১৭ বছর ২৯২ দিনে সবচেয়ে কম বয়সি হিসেবে ৫০ ওভারের ক্রিকেটে ডাবল সেঞ্চুরি করলেন তিনি। শুধু ঘরোয়া একদিনের ম্যাচই নয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও এত কম বয়সে কেউ দ্বিশতরান করেননি।

যশস্বীর আগে ২০ বছর ২৭৩ দিনে দক্ষিণ আফ্রিকার ঘরোয়া ক্রিকেটে ৫০ ওভারের ফরম্যাটে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন অ্যালান বরো। যা ঘটেছিল ১৯৭৫ সালে। অ্যালানের থেকে যশস্বী অবশ্য তিন বছরের ছোট।

কিছুদিন আগেই বিজয় হাজারে ট্রফিতে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন সাঞ্জু স্যামসন। এর আগে এই প্রতিযোগিতায় কেউ দ্বিশতরান করেননি। বুধবার আলুরে ঝাড়খণ্ডের বিরুদ্ধে ১৫৪ বলে ২০৩ রান করলেন যশস্বী। গড়লেন সর্বকনিষ্ঠ হিসাবে লিস্ট এ ক্রিকেটে ডাবল সেঞ্চুরি করার রেকর্ডও।

সপ্তাহখানেক আগে গোয়ার বিরুদ্ধে কেরলের হয়ে ২১২ রানে অপরাজিত ছিলেন স্যামসন। সেটাই এই টুর্নামেন্টের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান। গত মরসুমে সিকিমের বিরুদ্ধে উত্তরাখণ্ডের কর্ণ বীর কৌশলের করা ২০২ রানকে টপকে এই রেকর্ড গড়েছিলেন স্যামসন। ১৭ বছর বয়সি যশস্বী অবশ্য একটুর জন্য টপকাতে পারলেন না সঞ্জুকে। ব্যাঙ্গালুরুর আলুরে তার দাপটেই এদিন মুম্বাই তিন উইকেটে ৩৫৮ রান তুলল।

লিস্ট-এ ক্রিকেটে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের মোট নয়টি ডাবল সেঞ্চুরি রয়েছে। এর মধ্যে একদিনের ক্রিকেটে রয়েছে পাঁচটি। রোহিত শর্মার ব্যাটেই এসেছে তিনটি। শচিন টেন্ডুলকার ও বীরেন্দ্র শেবাগেরও ৫০ ওভারের ক্রিকেটে রয়েছে দ্বিশতরান। এ ছাড়া ২০১৩ সালে প্রিটোরিয়ায় দক্ষিণ আফ্রিকা এ দলের বিরুদ্ধে ভারত এ’র হয়ে শিখর ধাওয়ান করেছিলেন ২৪৮ রান।

এ দিন ঝাড়খণ্ডের বিরুদ্ধে যশস্বীর ১৫৪ বলের ইনিংসে ছিল ১৭টি চার ও ১২টি ছয়। অর্থাত্ বাউন্ডারি থেকেই এসেছে ১৪০ রান। চলতি টুর্নামেন্টে এটা তার তিন নম্বর সেঞ্চুরি। গোয়ার বিরুদ্ধে ১১৩ করেছিলেন তিনি। কেরালার বিরুদ্ধে করেছিলেন ১২২ রান।

গত বছর ঢাকায় অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপে প্রথম নজর কাড়েন যশস্বী। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ফাইনালে ৮৫ করেছিলেন তিনি। সেই টুর্নামেন্টে সব মিলিয়ে ৩১৮ এসেছিল তার ব্যাট থেকে। এই বছরের জুলাই-অগস্টে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সাত ইনিংসে ২৯৪ করেছিলেন যশস্বী। মোট রানে ছিলেন চার নম্বরে। ফাইনালেও ৫০ এসেছিল তার ব্যাট থেকে।