প্রধান মেনু

করোনা রোগীদের সেবা দিতে নিজ ইচ্ছায় এগিয়ে এসেছে ডা.মশিউর

সোহেল রানা সোহাগ,তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি:

সহকারি সার্জন ডা. মশিউর রহমান । তিনি সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার মাগুড়া বিনোদ ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের চিকিৎসক পদে দায়িত্বরত ছিলেন। ‘দেশের ক্রান্তিলগ্নে নিজেকে দেশের মানুষের জন্য উৎসর্গ করতে ঢাকা, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ জেলায় করোনা রোগীদের সেবাদানের জন্য আইসোলেশন সেন্টার এবং করোনা নিবেদিত হাসপাতাল সমূহে বদলীর জন্য স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে লিখিত আবেদন করেন। তাঁর এই আবেদনটি পুরো স্বাস্থ্য বিভাগে নাড়া দেয়। ডা. মশিউর রহমানের মানবিক এই আবেদন কে সাধুবাদ জানিয়ে গৃহীত করে নারায়ণগঞ্জের ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিতে যোগদানের নির্দেশদেন স্বাস্থ্য বিভাগ। বর্তমানে সে নারায়ণগঞ্জের করোনা আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছরিয়ে পরলে মুহুতেই ভাইরাল হয়ে পড়েছে । এখন প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন ডা. মশিউর রহমানের এমন মানবিক আবেদন।

ডা. মশিউর রহমান বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশের জন্য যুদ্ধ করতে পারি নি। এখন একটা সুযোগ পেয়েছি দেশের মানুষের জন্য কিছু করার। নিজেকে উৎসর্গ করেছি দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে করোনার সঙ্গে যুদ্ধটা চালিয়ে যাবার জন্য। তিনি আরো বলেন, আমার নানা সুবেদার হাবিবুর রহমান (বীর উত্তম) দেশের জন্য জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে ৪৬ বছর পঙ্গুত্বতর সঙ্গে লড়েছেন। নানার কাছ থেকে অনেক শিক্ষা পেয়েছি। তাই ভেবেছি ‘মরতে তো হবেই। মরবো যখন ভালো পথেই মরি। মানুষের সেবা করেই মরি।

মশিউর রহমান ৩০ এপ্রিল থেকে নারায়ণগঞ্জে হাসপাতালটিতে সংযুক্তি হিসেবে কর্মরত আছেন। কখনো করোনা সন্দেহে আসা রোগীদের নিয়মিত চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। আবার কখনো আইসোলশনে থাকা অন্তত ৭০ রোগীর দেখভালের দায়িত্ব নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। ডা. মশিউরের এমন মহতী আবেদনের কারনে তার সদ্য ত্যাগ করা তাড়াশ উপজেলার অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিনন্দন জানিয়েছেন। ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাড়াশ উপজেলা প্রশাসনও ।

২৭ এপ্রিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের পক্ষে পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো. বেলাল হোসেন এক প্রজ্ঞাপনে মশিউর রহমানকে নারায়ণগঞ্জে সংযুক্ত করেন। তবে তিনি মূল কর্মস্থল থেকে বেতন উত্তোলন করবেন বলে ওই প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়।

ডা. মশিউর রহমান ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার শিমরাইলকান্দিতে জন্মগ্রহন করেছেন। সাবেক সরকারি চাকুরে (বিজিবি’র ক্লার্ক) মো. বজলুর রহমান ও গৃহিনী শিরিনা আক্তার এর বড় ছেলে তিনি। সংসারে বাবা, মা ছাড়াও দুই ভাই ও এক বোন আছেন। মশিউর রহমান ৩৯তম বিসিএস ক্যাডার।