প্রধান মেনু

ঈশ্বরদীতে সমাপ্ত হলো সপ্তাহব্যাপী বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড

ঈশ্বরদী (পাবনা) সংবাদদাতাঃ
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের নিকটবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর
শিক্ষার্থীদের নিয়ে সপ্তাহব্যাপী বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের সমাপনী অনুষ্ঠান
‘প্রেসাইজ এনার্জি’ শুক্রবার রাতে ঈশ্বরদী শহরে অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হযেছে। বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান শিক্ষায় আগ্রহী করে তোলার লক্ষ্যে এই অলিম্পিয়াডের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে গনিত, পদার্থবিদ্যা ও রসায়নের প্রতিটি বিভাগের শীর্ষ ১০ জন করে মোট ৩০ জন কৃতি প্রতিযোগীর নাম
ঘোষনা করা হয়।বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রনালয় এবং বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত অলিম্পিয়াডের আয়োজন করে রুশ সংস্থা এনার্জি অফ দ্যা ফিউচার।
অনুষ্ঠানে পৃষ্ঠপোষকতা করে রুশ রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি কর্পোরেশন রসাটম,
রসাটমের প্রকৌশল বিভাগ – এটমস্ত্রয়এক্সপোট (এএসই) এবং রাশিয়ার জাতীয়
পরমাণু গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয় – মেফি।
সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের সাইট
ডিরেক্টর প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম, এটমস্ত্রয়এক্সপোর্ট (এএসই)
কম্যুনিকেশন্স বিভাগের প্রধান নিনা দেমেন্তসোভা, রুশ প্রতিষ্ঠান এনাজি অফ
দ্যা ফিউচারের উপ-মহাপরিচালক আলেক্সান্ডার বেইবেকভ।
এসময় ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারিনটেন্ডেন্ট ফিরোজ কবীর, ঈশ্বরদীর
সহকারী কমিশনার (ভূমি) মমতাজ মহল এবং ঈশ্বরদী মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ
হামিদুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। চূড়ান্ত পর্বে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের
ছাড়াও রাশিয়া হতে আগত একটি প্রতিনিধি দল, স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও
সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধি সমাপনি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করেন।
পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়,
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং রাজশাহী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬
শতাধিক শিক্ষার্থী অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেন।
প্রাথমিক পর্বে নির্বাচিত ১৫০ জন শিক্ষার্থী নিজের পছন্দ অনুযায়ী চুড়ান্ত
পর্বে পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং গণিত বিষয়ে আলাদাভাবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ
করেন।
চুড়ান্ত পর্বে অংশগ্রহনকারী প্রতিযোগীদের সনদপত্র, প্রতি বিভাগের শীর্ষ ৫
জনকে ক্রেস্ট এবং শীর্ষ ৩ জনকে বিশেষ গিফট হ্যাম্পার প্রদান করা হয়। এছাড়াও
পরমাণু শক্তি বিজ্ঞানে জ্ঞানের ভিত্তিতে শীর্ষ ৩ জনকেও বিশেষ পুরষ্কার প্রদান করা
হয়। প্রতি বিভাগ হতে চ্যাম্পিয়নের নাম পরবর্তীতে ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য
‘বঙ্গবন্ধু নিউক্লিয়ার অলিম্পিয়াড’-এর পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ঘোষণা
করা হবে এবং এরা প্রত্যেকে বিশেষ আকর্ষনীয় পুরষ্কার লাভ করবেন বলে ঘোষণা
দেয়া হয়।
প্রতিযোগিতার প্রাথমিক পর্বে শিক্ষার্থীদের উত্তরপত্র মূল্যায়নের দায়িত্ব পালন
করেন সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর শিক্ষকবৃন্দ। চূড়ান্ত পর্বে মূল্যায়নে
অংশগ্রহণ করেন রাশিয়ার মেফি হতে আগত শিক্ষক- আলেক্সি বোগদানভ,