ঈশ্বরদী লোকোসেড এলাকা ইয়াবার স্বর্গরাজ্যে পরিণত

পাঁচ নতুন গড ফাদার চট্রগ্রাম ও ঢাকা থেকে এসি প্রাইভেট কার,হাইয়েচ মাইক্রো ,বিভিন্ন ক্লিনিকের এ্যাম্বুলেন্স ও ট্রেন যোগে কোটি কোটি টাকার ইয়াবা আমদানী করছে
স্টাফ রিপোর্টার,ঈশ্বরদী ॥ ঈশ্বরদী লোকোসেড এলাকা এখন ইয়াবার স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। কুখ্যাত ইয়াবা ব্যবসায়ীদের গড ফাদার আলিয়া ভুলু গত জুন মাসে পুলিশের ক্রস ফায়ারে নিহত হওয়ার পর ঐ এলাকায় ইয়াবা আমদানী ও বিক্রি বৃদ্ধি পেয়েছে। এমনকি এক গড ফাদার আলিয়া ভুলুর মৃত্যুর পর পাঁচজন নতুন গড ফাদারের জন্ম হয়েছে। ভুলুর মৃত্যুর পর এরা বিভিন্ন মামলায় জামিনে এসে এ ব্যবসায় জোর দিয়েছে। প্রতিদিন চট্রগ্রাম ও ঢাকা থেকে নামী দামী এসি প্রাইভেট কার,হাইয়েচ মাইক্রো ,বিভিন্ন ক্লিনিকের নাম লেখা এ্যাম্বুলেন্স ও ট্রেন যোগে কোটি কোটি টাকার হাজার হাজার পিস ইয়াবা আমদানী করা হচ্ছে। মোবাইল ফোনে গড ফাদারদের সাথে যোগাযোগের পর শহর অথবা শহরের নিকটস্থ কোন নিরাপদস্থানে ঐসব গাড়িগুলো আমদানী কারকদের ইয়াবা নামিয়ে দিয়ে যাচ্ছে। আমদানি কারকরা আমদানীকৃত ইয়াবা ঈশ্বরদীর নিকটস্থ উপজেলা ও জেলাগুলোর মাদক ব্যবসায়ীদের নিকট নানা কৌশলে সরবরাহ ও বিক্রি করছে। একই সাথে তারা সু-কৌশলে শিশু,কিশোর,স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী ও এক শ্রেণীর অভাবী মহিলাদের ব্যবহার করছে। নির্দিষ্ট পরিমাণ হাজিরার বিনিময়ে গড ফাদাররা ইয়াবা পাড়ায় মহল্লায় ইয়াবা ছড়িয়ে দিচ্ছে। এমনকি দু’একটি মসজিদের মোয়াজ্জেমকেও এ কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে। সম্প্রতি ফাঁড়ি পুলিশ ও মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পৃথক অভিযানে ১৪ হাজার ৮০০ পিস ইয়াবাসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করলেও রহস্যজনক কারণে বর্তমানে সংশ্লিষ্ট বিভাগের তেমন জোড়ালো তৎপরতা দেখা যাচ্ছেনা। ইয়াবার আমদানী,সরবরাহ ও বিক্রির কারণে পাড়ায় পাড়ায় অভিভাবকরা ছেলে মেয়েদের নিয়ে দুঃচিন্তা গ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। এসব ইয়াবা আমদানী ও বিক্রির বিষয়ে পাবনা জেলা পুিলশ সুপার জিহাদুল কবীর পিপিএম বলেন,মাদক দ্রব্য বন্ধে ও গড ফাদারদের গ্রেফতার সর্বাতœক অভিযান অব্যাহত আছে। মাদকের জন্য পুলিশ জিরো টলারেন্স অবস্থায় আছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author