সাঁথিয়া প্রতিনিধিঃ
পাবনার সাঁথিয়ায় সরকারী বিধি লঙ্ঘন করে এবং মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের অনুমতি ছাড়া বোয়াইলমারী কামিল মাদ্রাসার উপধ্যাক্ষ আবু হানিফ ক্লাস ফাঁকি দিয়ে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও হজ্ব ব্যবসার জন্য সৌদিআরব গমনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অভিযোগে জানা যায়, সাঁথিয়া পৌরসদরে অবস্থিত বোয়াইলমারী কামিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা আবু হানিফ হজ্ব গমনেচ্ছুক ব্যক্তিদের সংগ্রহ করে প্রায় এক যুগ ধরে হজ্ব এজেন্সির মাধ্যমে ব্যবসা করে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন। তিনি সাঁথিয়ার বিভিন্ন গ্রাম গঞ্জের ব্যক্তিদের আবাবিল হজ্ব এজেন্সির মাধ্যমে হজ্ব পালনের জন্য সৌদিতে পাঠিয়ে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে আবু হানিফ নিজেও হজ্ব কাফেলার সাথে সৌদি গমন করেছেন।
এ নিয়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খবর প্রকাশ হওয়ায় বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। এর প্রেক্ষিতে গত ৬-৬-২০১৭ইং তারিখে উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমানকে বিষয়টি তদন্তের দায়িত ¡দেন সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তর। তদন্ত প্রতিবদেনে উল্লেখ করা হয় গত ২৩ বছরে তিনি যতবার হজে ¡গেছেন এবং যতদিন ছুটি ভোগ করেছেন তার অর্জিত ছুটির হিসাব থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। তাতে দেখা গেছে ২০১৭ সালে তার আর কোন অর্জিত ছুটি নেই। সরকারী বিধি মোতাবেক তিনি বিদেশ গমন করতে পারবে না।
জানা গেছে এর পরও সরকারী বিধি লংঘন করে গত ১৯-৮-২০১৭ইং তারিখে কোন খুঁটির জোরে পুনরায় তিনি কিভাবে সৌদি গমন করলেন এ নিয়ে চলছে শিক্ষক ও স্থানীয় সুধিজনদের মধ্যে গুঞ্জন।
মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সভাপতি সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমাদের মাদ্রাসাকে আর্থিক সহোযোগিতা করে এবং হজ্বের সময় খন্ডকালিন শিক্ষক দিয়ে যান এ জন্যই আমরা প্রতি বছর আবু হানিফকে হজ্বে যাওয়ার জন্য ছুটি দিয়ে থাকি। এ বিষয়ে অত্র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল আউয়াল জানান, উপাধ্যক্ষ আবু হানিফ যতজন ব্যক্তিকে হজ্ব পালনের উদ্দেশ্যে সৌদি পাঠান তাদের নিকট থেকে জনপ্রতি ২/৩ হাজার টাকা মাদ্রাসায় দেন। এ জন্য কমিটি তাকে প্রতি বছরই ছুটি দিয়ে থাকেন।
শিক্ষা অধিদপ্তরের অনুমতি ছাড়া বিদেশ গমন করার বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমান বলেন, প্রতিবছর বেসরকারী মাদ্রাসার একজন দায়িত্বশীল ব্যাক্তি হিসাবে হজ্ব কাফেলায় যাওয়া অনুচিত বলে মনে করি। তিনি যদি বিদেশ গমন করে থাকেন সরকারী বিধিমতে ছুটি নিয়ে বিদেশ গমন করেননি। তবে ম্যানেজিং কমিটি যদি ছুটি দেন এ জন্য আমার কিছু করার নেই।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author