পাবনা-৩ এলাকায় আওয়ামীলীগ থেকে এমপি মনোনয়ন প্রতাশী ছাত্র নেতা আতিকুর রহমান আতিক

চাটমোহর অফিস, ২৯ সেপ্টেম্বর ঃ

পাবনা-৩ (চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর) এলাকায় এখনই বইছে নির্বাচনী হাওয়া। এ আসন থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক ছাত্র নেতা আতিকুর রহমান আতিক তার সমর্থিত নেতা কর্মীসহ বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন পেশার লোকজনের সাথে মত বিনিময় ও উঠোন বৈঠকের পাশাপাশি উচ্চ পর্যায়ে লবিং অব্যাহত রেখেছেন। নিজের পক্ষে সমর্থন আদায়ে তৃণমূলের নেতা কর্মীদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন নিয়মিত।
পাবনা-৩ এলাকা থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী এ তরুণ নেতা ১৯৭১ সালে জন্ম গ্রহন করেন। পুরো নাম আতিকুর রহমান আতিক। পিতা মৃত আব্দুস সামাদ। মাতার নাম- আয়েশা খাতুন। বসবাস করেন চাটমোহর পৌরসদরের নারিকেলপাড়া মহল্লায়। ব্যবসার সুবাদে ঢাকায় ও বসবাস করেন। বাহাদুরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্তির পর ভর্তি হন মূলগ্রাম ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে। ১৯৮৬ সালে সেখান থেকে এস এসসি পাশ করেন। ১৯৮৮ সালে চাটমোহর ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচ এস সি পাশ করেন। ১৯৮৯-৯০ শিক্ষা বর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মনোবিজ্ঞান বিষয়ে ভর্তি হন। সেখান থেকে ১৯৯৪ সালে বিএসসি (সম্মান) এবং ১৯৯৬ সালে এমএসসি পাশ করেন।
তিনি জানান, “ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত হই এইচ এসসি তে পড়ার সময় থেকে। আমার পরিবারের সবাই ছিল আওয়ামী ঘরনার মানুষ। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ আমাকে রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হতে অনুপ্রেরণা যোগায়। ১৯৯৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হই। ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সিনিয়র সহ সভাপতি নির্বাচিত হই। ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যকরী সংসদে (বাহাদুর- অজয়) সদস্য নির্বাচিত হই। এর পর ছাত্রলীগ ছেড়ে সম্পৃক্ত হই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় উপকমিটির সহ সম্পাদক মনোনীত হই। বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কার্যক্রমে সক্রিয় থাকার পাশাপাশি চাটমোহরে আওয়ামীলীগের কার্যক্রমে অংশ গ্রহন করি।”
কেন রাজনীতি করেন এবং এমপি হতে চান এমন প্রশ্নে তিনি জানান, “ মানুষের কল্যাণে কাজ করার বড় মাধ্যম রাজনীতি। অন্য পেশায় থেকে এটি বৃহত পরিসরে করা সম্ভব নয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা বিনির্মাণে তার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ক্ষুধা দারিদ্র বিমোচন করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা তথা শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ এবং ২০৪১ সালের রুপকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্যে যুবসমাজকে উদ্বুদ্ধ করে উন্নত সমৃদ্ধ একটি বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখি, যে বাংলাদেশ পৃথিবীর বুকে প্রথম সাড়ির দেশ হিসাবে মর্যাদা নিয়ে মাথা উচু করে দাড়াবে, যে উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ স্বাধীন করেছিলেন।”
পাবনা-৩ এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, একটি এলাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড নির্ভর করে সে এলাকার জনপ্রতিনিধিদের নেতৃত্বের উপর। একজন নেতার মধ্যে নেতৃত্বের গুনাবলী থাকা প্রয়োজন। নেতাকে হতে হবে সৎ, শিক্ষিত, উচ্চাভিলাশ মুক্ত। একটি বৃহত এলাকায় নেতৃত্ব দেবার জন্য বৃহত মনের মানুষ আবশ্যক। পাবনা-৩ এলাকার উন্নয়ন এর জন্য আগামিতে তিনি সকলকে তার পাশে থাকার আহবান জানান।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author