অপহৃত কলেজ ছাত্রীকে ২৬ ঘন্টা পর ফিরে পেল পরিবার

নিজস্ব প্রতিনিধি ঃ
পূজার ছুটিতে বাড়িতে আসা পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের এইচএসসি বিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী দৃষ্টি দাসকে অপহরণের ২৬ ঘন্টা পর ফিরে পেল তার পরিবার। দীর্ঘ ২৬ ঘন্টা উৎকন্ঠা ও অনিশ্চয়তার মধ্যে পার করে শুক্রবার ভোরে তাকে ফিরে পেয়ে পরিবারের সদস্যরা আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন। দৃষ্টি উপজেলার খানমরিচ ইউনিয়নের করতকান্দী গ্রামের নাট্য ব্যক্তিত্ব মিলন দাসের কন্যা। অপহৃতার পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই কলেজ ছাত্রী বুধবার দিবাগত রাত ২টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সারা দিতে ঘরের বাইরে বের হলে একই গ্রামের প্রভাবশালী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব আবুল কাশেমের ছেলে শফিউল্লাহ (২২) তিন-চারজন অজ্ঞাত যুবককে সঙ্গে নিয়ে ওই কলেজ ছাত্রীকে বাড়ি থেকে জোর পূর্বক মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাত ৮ টায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে সফিউল্লাহ ও তার বাবাসহ চারজনকে আসামী করে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ প্রাপ্তির পরপরই পুলিশ অপহৃতাকে উদ্ধারে বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক অভিযান শুরু করেন। রাতেই অপহরণের মূল পরিকল্পনাকারী সফিউল্লাহর বাবাকে পুলিশ আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পরে অবশ্য তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। এতে অপহরণকারীর পরিবার ভীত হয়ে সফিউল্লাহর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করে অপহৃতাকে তার বাড়িতে ফিরিয়ে দিতে বলে। এর কয়েক ঘন্টা পর শুক্রবার ভোরে অপহৃতাকে তার বাবা মিলন দাসের বাড়ির পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় অপহরণকারীরা। শুক্রবার সকালে পুলিশ অপহৃতাকে থানায় নিয়ে এসে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে কোন ডাক্তারি পরীক্ষা ছাড়াই পরিবারের হাতে তুলে দেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল জানান, মেয়েকে ফিরে পেয়ে শুক্রবার সকালে বাদী অভিযোগ প্রত্যাহার করায় এবং হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের নেতাদের অনুরোধে উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে ডাক্তারি পরীক্ষা ছাড়াই অপহৃতাকে পরিবারের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। অপহৃতার দাদু নিরঞ্জন দাস জানান, থানায় অভিযোগ দায়েরের পর থেকেই আমাদেরকে আসামির পরিবার থেকে বিভিন্নভাবে হুমকি প্রদান করা হচ্ছে। তাই অভিযোগ প্রত্যাহার করা ছাড়া কোন উপায় ছিলনা। বর্তমানে অপহরণের বিষয়টি নিয়ে ওই এলাকার হিন্দু পল্লিতে এখনো থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author