চাটমোহরের গুণিশিক্ষক দেলমাহমুদের ১ম মৃত্যুবার্ষিকী

চাটমোহর অফিস : আজ বুধবার ১১ অক্টোবর পাবনার অন্যতম কৃতীসন্তান, গুণিশিক্ষক দেলমাহমুদ (১৯৩৯-২০১৬) এঁর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী।

পাবনার চাটমোহর উপজেলার কৃতীসন্তান ও আলোকিত মানুষ গড়ার কারিগর দেল মাহমুদ-এঁর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৬ সালের ১১ অক্টোবর রাত ৯.৪০ মিনিটে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একাশি বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তাঁকে ঢাকা সেনানিবাসে, চাটমোহরে এবং বগুড়ায় জানাজা শেষে বগুড়ার ঠনঠনিয়া ভাই পাগলা মাজার কবরস্তানে চিরনিদ্রায় সমাহিত করা হয়।

শিক্ষাবিদ দেল মাহমুদ ১৯৩৯ সালের ৩০ এপ্রিল পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলার চরপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ভাঙ্গুড়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালে ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণের কারণে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাঁকে ফোর্স টিসি দিলে তিনি ফরিদপুর উপজেলার দিঘলিয়া আলহাজ জয়েন উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন এবং সেখান থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। এরপর কারিগরি শিক্ষার ওপর বিভিন্ন কোর্স সফলতার সঙ্গে সম্পন্ন করে কর্মজীবনে প্রবেশ করেন। কর্মজীবনের অধিকাংশ সময় অতিবাহিত করেন বগুড়া পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে। সর্বশেষ নওগাঁ ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটের সুপারিনটেন্ডেন্ট হিসেবে অবসর নিয়ে বগুড়ার পাইকারপাড়া মালতিনগরস্থ “স্বপ্নের সিঁড়ি” বাড়িতে বসবাস করেন। মৃত্যুকালে তিনি পাঁচ ছেলে– অধ্যক্ষ ডাক্তার মো. জাহাঙ্গির আলম (কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ থেকে সম্প্রতি অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্বরত অবস্থায় অবসর নেন), মেজর জেনারেল মো. ফসিউর রহমান, এনডিসি (ঢাকা সেনানিবাসস্থ আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজের বর্তমান কমান্ড্যান্ট), ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জালাল উদ্দিন (চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বর্তমান পরিচালক), কৃষিবিদ এএইচএম জাকির হোসেন হেলাল (উপ-সহকারী ভূমি উন্নয়ন কর্মকর্তা এবং কনিষ্ঠ ওয়াই এম বেলালুর রহমান (ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের বর্তমান অতিরিক্ত কমিশনার।
অনাবিল সংবাদ ও পাবনা সংবাদপরিবার এই গুণি শিক্ষকের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি ।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author