তিন দিনমজুরের অনুপ্রেরণা মাদকের বিরুদ্ধে দাড়ালেন তরুণরা

রনি ইমরান : এলাকায় মাদক বিরোধী মিছিল। নবীন প্রবীনদের দফায় দফায় বৈঠক। মসজিদে মসজিদে প্রতি শুক্রবার খুতবায় মাদকের কুফল তুলে ধরা। মাদকসেবীদের সুপথে ফিরিয়ে আনার জন্য ফ্রি স্বাস্থ্যসেবা। এলাকার সর্বস্তরের মানুষের ঐক্যবদ্ধতায় মাদকের বিরুদ্ধে জেগে উঠলো তরুণরা। পাবনা শহর থেকে মাত্র দুই কি.মি পথ পেরোলেই দোগাছী ইউনিয়নের বলরামপুর গ্রাম। দীর্ঘদিন যাবৎ এই এলাকায় মাদকের রমরমা ব্যবসা। ইয়াবা, ফেনসিডাইল, হেরোইনসহ সকল ধরনের মাদকের স্বর্গরাজ্য বলে পরিচিত এলাকা। প্রতিদিন শত শত মাদকাসক্ত মাদক গ্রহণ করতে সকাল থেকে সন্ধ্যা গড়িয়ে গভীর রাত পর্যন্ত এলাকায় আনাগোনা করে। এলাকার অনেক তরুণরা নেশার ফাঁদে পা বাড়াতে থাকে। যেন এক অদ্ভুত আধার গ্রাস করে নিচ্ছিল গোটা সমাজটাকে। এমন একটি অবস্থায় মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার হলো ৩ দিনমজুর। তারা সাহসী উদ্যোগের সূচনা একে দিলেন। ৩ দিনমজুর হলেন- শাহজাহান, রনি, মজনু। মজনু পেশায় একজন ভ্যান চালক। তিনি জানান, তাদের পরিবারগুলো খুবই দরিদ্র। প্রতিনিয়ত অভাব অনটনের মধ্যে দিন পার হয়। এমন অবস্থার মধ্যে পরিবারের কোন সদস্য যদি মাদকের অভিশাপে জড়িয়ে পরে তবে তার চেয়ে ভয়ঙ্কর কিছু আর নেই।

সর্বপ্রথম আমরা মাদকবিক্রি বন্ধে বাধা প্রদান করি। আমাদের এই উদ্যোগে এলাকার তরুণরা এগিয়ে আসেন। তরুণরা মাদক প্রতিরোধ করতে দাড়িয়ে গেলেন। এরপর একে একে এলাকার সর্বস্তরের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হন মাদকের অভিশাপ থেকে সমাজটা রক্ষা করার জন্য। তরুণদের সাথে ঐক্য হয়ে এলাকার সর্বস্তরের মানুষ মাদক বিরোধী কমিটি গঠন করা হয়। সচেতনতার জন্য এলাকায় মিছিল করা হয়। নবীন প্রবীন এলাকাবাসী মিছিলে ঐক্যবদ্ধ হন। এমনকি স্কুল-কলেজের ছাত্ররাও আমাদের সাথে যোগ দেন। এলাকার একজন তরুণ তমাল জানান, দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় মাদকের রমরমা ব্যবসা হয়ে আসছে। আমরা ঐক্যবদ্ধ হওয়ায় মাদক বিক্রি অনেকটা কমেছে। রনি জানায়, এলাকায় মাদক বিক্রিতে বাধা প্রদানের পাশাপাশি মাদকাসক্তদের সুন্দর জীবনে ফিরিয়ে আনার জন্যে ফ্রি স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের উদ্যোগ নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। এলাকার ব্যবসায়ী আব্দুল করিম জানান, আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে সমাজ থেকে মাদক অভিশাপ দূর করতে পারবো ইনশা-আল্লাহ।
দোগাছী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সোবাহান সরকার জানায় এলাকায় মাদক বিরোধী আন্দোলন চলছে, চলবে। এ ব্যাপারে আমরা ঐক্যবদ্ধ আছি। বিভিন্ন সময় হুমকি-ধামকি আসছে। এ ব্যাপারে আমরা জেলা পুলিশের সহযোগিতা চাই। দোগাছী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলী হাসান জানায়, এলাকাবাসীর এই ভালো উদ্যোগের কথা আমি জানি। আমি নিজেও তাদের মাদক বিরোধী মিছিলে অংশগ্রহণ করি। তাদের সার্বিক সহযোগিতা করবো। পাবনা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস জানায়, মাদক একটি সমাজের ভয়ঙ্কর অভিশাপ। মাদকের বিরুদ্ধে পাবনা পুলিশ ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছে। মাদক বিক্রেতাদের কোন রেহাই নেই। তরুণদের এমন উদ্যোগ সত্যিই প্রসংশনীয়। এ ব্যাপারে আমাদের সার্বিক সহযোগিতা থাকবে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author