সিরাজগঞ্জে দাফনের তিন মাস ১৭ দিন পর গৃহবধুর লাশ উত্তোলন

সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় দাফনের  তিন মাস ১৭ দিন পর আগুনে পুড়ে মারা যাওয়া গৃহবধু ফাতেম বেগমের (৫৩) লাশ ময়নাতদন্তের জন্য উত্তোলন করা হয়েছে।
সোমবার দুপুর ২টার দিকে সিরাজগঞ্জের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ ওবায়দুল্লাহ’র উপস্থিতিতে পুলিশ উল্লাপাড়া উপজেলার অলিপুর সীমাবাড়ি গ্রামের কবরস্থান থেকে এ লাশ উত্তোলন করে।
লাশ উত্তোলনের সময় উপস্থিত ছিলেন কবরস্থানে উল্লাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. কে.এম মুস্তাফিজুর রহমান, উল্লাপাড়া মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মহসিন আলী, ইব্রাহিম হোসেন, জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।
নিহত ফাতেমার বড় ছেলে আহম্মেদ উল্লাহ জানান, অলিপুর সীমাবাড়ী গ্রামের শিক্ষক ওসমান গনির স্ত্রী ফাতেমা বেগম চলতি বছরের ১২ জুন রাতে তার শোবার ঘরে সংগঠিত অগ্নিকান্ডে মারা যান। ঘটনার রাতে তিনি একাই ঘরে ছিলেন। পরদিন গ্রামের লোকজন ও তার স্বজনেরা বিদ্যুতের শটসার্কিটে ফাতেমা মারা গেছে ধারণায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই তার লাশ গ্রামের কবরস্থানে দাফন করেন। পরে ২০ জুন (২০১৭) তারিখে ফাতেমার বড় ছেলে আহম্মেদ উল্লাহ বাদী হয়ে সিরাজগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতে ৬জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। আসামীরা হলেন একই গ্রামের মোয়াজ্জেম হোসেনের ছেলে আমজাদ হোসেন (৪৫) ও নুরুল ইসলাম (৫০), আমজাদ হোসেনের ছেলে আব্দুল মমিন (২৫) ও আশরাফুল ইসলাম (২২), নুরুল ইসলামের ছেলে শাহাদত হোসেন (২৫) এবং নুরুল ইসলামের স্ত্রী শাহানা খাতুন (৪০)।
তিনি অভিযোগ আরও বলেন, ঘটনার দিন ঘরটি আগুনে পুড়ে যাওয়ায় তারা বিষয়টি বিদ্যুতের শটসার্কিট মনে করেছিলেন। পরে ঘর সরানোর পর দেখা যায় ঘরের ডোয়ায় সিঁধ কাটা রয়েছে। এতে তারা বুঝতে পারেন আসামীরা পরিকল্পিতভাবে সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে আগুন ধরিয়ে দিয়ে ওই সিঁধ দিয়ে পালিয়ে যায়। আসামীদের সঙ্গে আহম্মোদ উল্লাহ’র বাবার জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ ছিল। এই বিরোধের জের ধরেই তারা এই হত্যাকান্ড ঘটায় বলে তাদের ধারণা।
কবর থেকে লাশ উত্তোলনের সময় উপস্থিত থাকা এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উল্লাপাড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোলাম মোস্তফা জানান, এই মামলা দায়েরের প্রেক্ষিতে আদালতের নির্দেশে তারা লাশ উত্তোলন করে ময়নাতদÍের জন্য সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
লাশ উত্তোলনের দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ ওবায়দুল্লাহ জানান, আহম্মেদ উল্লাহ’র মামলার প্রেক্ষিতে আদালতের নির্দেশে ফাতেমা বেগমের লাশ উত্তোলন করা হয়েছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author