পরীক্ষার ফি দিতে না পাড়ায় আটঘরিয়ার খিদিরপুর কলেজ শিক্ষকের থাপ্পড়ে ছাত্র হাসপাতালে

পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার খিদিরপুর ডিগ্রী কলেজের এইচএসসি ১ম বর্ষের মেধাবি ছাত্র সজল পরীক্ষার ফি দিতে না পাড়ায় তাকে বেধরক মারপিট করে গুরুতর আহত করেছে। আহত অবস্থায় তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় আটঘরিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার মাজপাড়া ইউনিয়নের পারাসিঁধাই গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে খিদিরপুর ডিগ্রী কলেজের এইচএসসি ১ম বর্ষের বাণিজ্য বিভাগের মেধাবি ছাত্র সজল এর পরীক্ষার ফি বাবদ ৩৫০ টাকা বাঁকি থাকায় ইংরেজি প্রথম পত্র পরীক্ষা চলাকালিন সময়ে ক্রীড়া শিক্ষক রমজান আলী ও অফিস সহকারী জয়নাল হোসেন প্রচন্ড ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে বেধরক চর থাপ্পর, কিলঘুষি ও লাথি মেরে গুরুত্বর আহত করে। কানে শুনতে না পারলে সজল চিৎকার করে পরীক্ষার রুমের মধ্যে গুরুতর আহত অবস্থায মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে তাকে আহত অবস্থায় আটঘরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রে ভর্তি করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাম পাশের কানে গুরুত্বর আঘাত দেখে পাবনা সদর হাসপাতালে রেফাট করেন। এঘটনায় কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ঐ শিক্ষক ভয়ে আতৎক বিরাজ করছে। কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা জানায়, একজন ক্রীড়া শিক্ষক হয়ে সামান্য পরীক্ষার ফি বাকি থাকায় সজলকে মারপিট করবে শিক্ষকের চরিত্র না। তবে অনেক ছাত্র-ছাত্রীর পরীক্ষার ফি বাকি রয়েছে তার জন্য তাকে আক্রোশ মুুলক ভাবে কানে আঘাত করা টা মটেও উচিত হয়নি। এবিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আখের উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন আমি ঘটনাটি জানি এবিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে আহত ছাত্র সজল এই ঘটনায় শ্বারিরীক ও মানুষিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন এবং লেখা-পড়া বিষয়টি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। কলেজের সকল ছাত্র এই ঘটনায় তিব্র নিন্দা ও দোশিদের বিরুদ্ধে শাস্তি দাবি করেছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author