ঈশ্বরদীতে ভূমিমন্ত্রীর ছেলে ও তার ক্যাডার বাহিনীর হাতে ৩ সাংবাদিককে মারপিট ও ক্যামেরা ভাংচুেরর ঘটনার প্রতিবাদে পাবনায় সাংবাদিকদেক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত।

স্টাফ রিপোর্টারঃ

পাবনার ঈশ্বরদীতে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে ভূমিমন্ত্রীর ছেলে শিরহান শরীফ তমাল ও ক্যাডার বাহিনী পিটিয়ে আহত করেছে ৪ টিভি সাংবাদিককে। বুধবার বিকেলে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় তারা ল্যাপটপ ও ক্যামেরা ভাংচুর করেছে। আহতদের পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার প্রতিবাদে সন্ধ্যায় শহরের ট্রাফিক মোড়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন পাবনায় কর্মরত সাংবাদিকরা। সমাবেশে ন্যায্য বিচার হওয়া না পর্যন্ত ভূমিমন্ত্রীর সংবাদ বয়কট এর পাশাপশি তিনদিন ব্যাপি কালোব্যাচ ধারণ করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়।
আহতরা হলেন; সময় টিভি ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের পাবনা প্রতিনিধি সৈকত আফরোজ আসাদ, এটিএন নিউজের পাবনা প্রতিনিধি রিজভী রাইসুল ইসলাম জয়, ডিবিসি নিউজের পাবনা প্রতিনিধি পার্থ হাসান ও ক্যামেরা পার্সন মিলন হোসেন।
আহত সাংবাদিকরা জানান, বুধবার বিকেলে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সম্পাদক এডভোকেট রবিউল আলম বুদুর প্রচার গাড়ীতে হামলা ও ভাংচুর করে ভুমিমন্ত্রীর ছেলে তমাল ও তার অনুসারী যুবলীগের ক্যাডার বাহিনী। এ সময় ভাংচুর ও হামলা দৃশ্য ভিডিও ক্যামেরা ধারণ করার সময় ক্যাডাররা সাংবাদিকদের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে বেধরক মারপিট করে। তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা ছুঁটে এসে উদ্ধার করে। পরে তাদের আহতাবস্থায় পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে আহত সাংবাদিকদের দেখতে যান পাবনায় কর্মরত সাংবাদিকরা। পরে হাসপাতাল চত্বর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন সাংবাদিকরা। বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে শহরের প্রধান আব্দুল হামিদ সড়ক অবরোধ করে ট্রাফিক মোড়ে প্রতিবাদ সভা করে। এ সময় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে বক্তব্য দেন,পাবনা সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি বিটিভি প্রতিনিধি আব্দুল মতীন খান, সাধারণ সম্পাদক শহিদুর রহমান, কল্যাণ সম্পাদক এস.এম.মাহবুব আলম,
প্রেসক্লাবের সভাপতি অধ্যাপক শিবজিত নাগ, সহ-সভাপতি কামাল সিদ্দিকী, সম্পাদক আঁখিনূর ইসলাম রেমন, সাবেক সম্পাদক উৎপল মির্জা, এবিএম ফজলুর রহমান,দৈনিক সংবাদেও জেলা প্রতিনিধি হাবিবুর রহমানস্বপন, ,মাছরাঙা টেলিভিশনের উত্তরাঞ্চলীয় ব্যুরো চীফ উৎপল মির্জা, দৈনিক জনকণ্ঠের জেলা প্রতিনিধি কৃঞ্চ ভৌমিক, ডেইলী স্টারের জেলা প্রতিনিধি তপু আহম্মেদ প্রমুখ। সমাবেশ থেকে সাংবাদিকদের আহতের প্রতিবাদে তিনদিন কালোব্যাজ ধারণ ও ভূমি মন্ত্রীর সকল সংবাদ বয়কটের ঘোষণা দেন সাংবাদিক নেতারা।
ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনাটি লোকমুখে শুনেছি। তবে অভিযোগ পাইনি। তথ্য উদঘাটনের চেষ্টা করছে পুলিশ।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author