পাবনা ফরিদপুরের কৃতিসন্তান আবুল কালাম আজাদ হলেন এলজিইডি’র প্রধান প্রকৌশলী

ডেক্স :; স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী পদে উন্নীত হলেন পাবনার কৃতিসন্তান প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ। এর পূর্বে তিনি একই অধিদফতরে অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ ১৯৬০ সালের ১০ মে পাবনা জেলার ফরিদপুর উপজেলার পারফরিদপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা আলহাজ ইব্রাহিম হোসেন খান অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার। পুলিশ বিভাগে আলহাজ ইব্রাহিম হোসেনের সুনাম সর্বত্র। মাতা শামসুন নাহার ছিলেন রত্নগর্ভা জননী। ছয় ভাই ও দুই বোনের মধ্যে প্রকৌশলী আবুল কালাম আজাদ তৃতীয়।

প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ রাজশাহী গভ. ল্যাবরেটরি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৭৫ সালে প্রথম বিভাগে এসএসসি এবং রাজশাহী কলেজ থেকে ১৯৭৭ সালে প্রথম বিভাগে এইচএসসি পাস করেন। তিনি বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে ১৯৮২ সালে বিএসসি (ইঞ্জিনিয়ারিং) এবং ইংল্যান্ডের বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৯ সালে এমএসসি ডিগ্রি অর্জন করেন।

কর্মজীবনের প্রথমে প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ একটি নির্মাণ ফার্মে জুনিয়র প্রকৌশলী হিসেবে এক বছর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৩ সালে তিনি স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদফতরের অধীন সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলায় উপজেলা প্রকৌশলী হিসেবে যোগ দেন।

উপজেলা প্রকৌশলী হিসেবে তিনি সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়া উপজেলা (১৯৮৩-৮৮), পাবনা জেলার ফরিদপুর উপজেলা (১৯৮৮-৮৯), আটঘরিয়া উপজেলা (১৯৯০-৯১) এবং পাবনা সদর উপজেলা (২০ মার্চ ১৯৯১–১৯ ডিসেম্বর ১৯৯১) দায়িত্ব পালন করেন। নির্বাহী প্রকৌশলী হিসেবে তিনি ১৯৯২–২০০৫ সাল পর্যন্ত পাবনা, বগুড়া, নওগাঁ ও যশোর জেলায় দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরাধীন সদর দফতরে উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়কে পোর্টেবল স্টিলব্রিজ নির্মাণ প্রকল্প এবং জাইকা প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এবং অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের সদর দফতরে সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। কর্মজীবনে প্রকৌশলী মো. আবুল কালাম আজাদ একজন সৎ ও নীতিবান অফিসার হিসেবে সর্ব মহলে সুপরিচিত।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author