স্থাণীয়দের মধ্যে চরম ক্ষোভ পাবনায় এবার আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে গোরস্থানের গাছ বিক্রি করে টাকা আত্বসাতের অভিযোগ।

মোবারক বিশ্বাস, পাবনা থেকে ঃ পাবনা আটঘরিয়া পৌরসভার ধলেশ্বর কেন্দ্রিয় গোরস্থানের উঠতি বয়সের ৭ টি মেহগুনী, ১টি বড় ফলন্ত কাঁঠাল, ১টি নিম গাছ ও ১টি নারিকেল গাছ কর্তন করে বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে এলাকার প্রায় ১০ গ্রামের মানুষের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয়দের দেয়া তথ্যে জানা যায় , ধলেশ্বর কেন্দ্রিয় গোরস্থান কমিটির সভাপতি, আটঘরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আটঘরিয়া মহাবিদ্যালয়ের প্রভাষক মোঃ শরিফুল আলম রাজুর একক সিদ্ধান্তে গোরস্থানের গাছগুলো কাটার অভিযোগ উঠেছে। গোরস্থান কমিটির অনুমতি না নিয়ে এই গাছ কর্তন করায় এলাকার জনসাধারণ এর মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এবিষয়ে গোরস্থান কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও আটঘরিয়া পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ ফরহাদ হোসেন চঞ্চল জানান, আমি নামে মাত্র সাধারণ সম্পাদক সভাপতি রাজু একক সিদ্ধান্তে এসকল কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। এসময় তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ প্রায় প্রায় ৩ বছর শুধুমাত্র সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দিয়ে কমিটি পরিচালিত হচ্ছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গোরস্থান সংলগ্ন একজন সাধারণ বাসিন্দা জানান, উক্ত সভাপতি শরিফুল আলম রাজু ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফরহাদ হোসেন চঞ্চল দীর্ঘদিন এই গোরস্থানের সম্পদ ভোগদখল করছেন এবং সরকারি অনুদান এনে নাম মাত্র কাজ দেখিয়ে সকল টাকা আত্মসাৎ করছেন। তিনি আরও বলেন সরকারি দপ্তরে খোঁজ নিয়ে তদন্ত করলে তাঁর এই দুর্নীতি ও অনিয়মের নানা তথ্য প্ওায়া যাবে। এলাকার একাধিক বাসিন্দা বলেন, সভাপতি গোরস্থানের ঘরে বসে জনসম্মুখে বলেন, সরকারি টাকা আমি সব খেয়ে ফেলব এতে কারো কিছু বলা যাবেনা।
এ বিষয়ে মোঃ শরিফুল আলম রাজু মুঠো ফোনে জানান, আমি সকলের অনুমতি নিয়েই গাছ কেটেছি। কেউ যদি অভিযোগ করে তাহলে তাকে আমার কাছে আসতে বলেন। তিনি আরও বলেন গোরস্থানের সোলার আলো পায়না তাই গাছ কেটেছি এতে অভিযোগের কি আছে। গাছ কাটার বিষয়ে কমিটির অনুমতির রেজুলেশন আছে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারে নাই।
এ ঘটনায় এলাকার সাধারণ জনগনের মনে নানা প্রশ্ন তৈরি হচ্ছে এবং এভাবে পরিবেশের ভারসাম্য ও গোরস্থানের সৌন্দর্য নষ্ট করে গাছ কাটা শুধু অপরাধ না গুরত্বর অপরাধ মনে করেন তারা। এ বিষয়ে, এলাকাবাসী তার সকল অপকর্ম তদন্তপূর্বক জেলা প্রশাসকের কাছে ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবী জানিয়েছেন।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author