ঈশ্বরদীতে মাদকের আমদানী বিক্রি থামছেনা

স্টাফ রিপোর্টার,ঈশ্বরদী ॥ পুলিশ,ডিবি পুলিশ, র‌্যাব, এবং মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অব্যাহত অভিযানের পরও ঈশ্বরদীতে মাদকের আমদানী ও বিক্রি বন্ধ হচ্ছেনা।বরং মুলাডুলি হাজারিপাড়া,পাকশী হঠাৎপাড়া ও বাজার রোডের মেথরপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় মাদকের ব্যবসা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। মাদক ব্যবসায়ীরা মাঝে মধ্যেই কৌশল রুট পরিবর্তণ করে ইয়াবা,ফেন্সিডিল,হেরোইন,দেশী-বিদেশী মদ ও গাঁজা আমদানী করছে। এতে ক্রমান্বয়ে যুব সমাজ এডিক্টেড হয়ে ধংসের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এসব নেশার ছোবল থেকে মেয়েরাও রক্ষা পাচ্ছেনা। অনেক পরিবারের মেয়ে ও শিক্ষার্থীরাও আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। ফলে প্রায় প্রতিদিনই কোননা কোন পরিবারে মাদকাশক্ত ছেলে-মেয়ের জন্য নানা সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে।

বিভিন্ন এলাকার ভুক্তভোগী,প্রত্যক্ষদর্শী ও মাদক ব্যবসায়ীদের একাধিক সুত্রমতে,সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের মাদক বিরোধী তৎপরতা বৃদ্ধি হলেও মাদক আমদানী কারক ও বিক্রেতারা কৌশল ও রুট পরিবর্তণ করে বহালতবিয়তে মাদক আমদানী বিক্রি চালিয়ে যাচ্ছে। প্রশাসনের দু’একজন চতুর সদস্যের বিরুদ্বে নিয়মিত মাসোয়ারা নেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে। ঈশ্বরদী শহরে সাম্প্রতিক সময়ে পুলিশের মাদক বিরোধী তৎপরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় ব্যবসায়ীদের আমদানী -বিক্রির কৌশল ও রুট পরিবর্তণ হয়েছে। তারা চারঘাট,বাঘা, লালপুর হয়ে পদ্মানদী দিয়ে পাকশী পদ্মানদীর পন্টুন ঘাট ও তিলকপুরে এবং বিভিন্ন ট্রেন রুটে মেথরপাড়াসহ ঈশ্বরদীর বিভিন্ন অঞ্চলে মাদক আমদানী করছে। পরে সে সব স্থান থেকে ঈশ্বরদীর বিভিন্ন এলাকাসহ ঈশ্বরদীর বাইরে পাচার করা হচ্ছে।
মাদক ব্যবসার গডফাদারদের মাদকের ক্যারিয়ার হিসেবে কিছু মহিলা ও জিন্সপ্যান্ট পড়া কলেজগামি কিছু যুবক রয়েছে। যাদের বেশীরভাগেরই বাসাবাড়ি শহরের বিভিন্ন এলাকায় ও লোকোসেড এলাকায়। পোষাক ও চলন বলনে মাদকের ক্যারিয়ারদের দেখে সহজে কেউ বুঝতে পারবেনা । এছাড়াও তারা বিভিন্ন মোটরবাইক এ সংবাদপত্র লিখা বা ইংরেজিতে প্রেস লিখা স্টিকার ব্যবহার করছে তারা।সূএমতে,সংশ্লিষ্ট সংস্থার কতিপয় সদস্যের সাথে মাসিক চুক্তি থাকায় রেলগেট মেথর পাড়া এলাকার অজয়-বিজয়,টারজানসহ বাজারের একাধিক দোকানে দেশীবিদেশী মদ বিক্রি বন্দ হচ্ছেনা। ভুক্তভোগীরা এসব আমদানী ও বিক্রি বন্ধে ঈশ্বরদীর এডিশনাল এসপি ও ওসির জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author