পর্দা নামলো ‘রুচি ৩৫তম জাতীয় ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশীপ’র; তৃণমুল থেকে দক্ষ খেলোয়ার গড়ে তুলতে প্রশিক্ষণ ও পৃষ্ঠপোষকতা দাবি

মোবারক বিশ্বাস, পাবনা থেকে ঃ রুচি ফি. ম. শামসুল আরেফিন স্মৃতি ৩৫তম জাতীয় ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশীপ এর প্রতিযোগিতা শেষ হয়েছে। ৪দিন ব্যাপী এ প্রতিযোগিতায় সারাদেশের ৪৫টি জেলা থেকে ২৯০ জন খেলোয়ার অংশ নেয় এই টুর্নামেন্টে। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো পাবনায় অনুষ্ঠিত হলো জাতীয় ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট। জেলা শহরে জাতীয় টুর্নামেন্ট আয়োজন নিয়ে খুশি খেলোয়াররা।

গত ২৭ জানুয়ারি পাবনা শহীদ অ্যাডভোকেট আমিন উদ্দিন স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়াম হলে শুরু হয় শামসুল আরেফিন ৩৫তম জাতীয় ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশীপ। প্রধান অতিথি হিসেবে টুর্নামেন্ট উদ্বোধন করেছিলেন স্থানীয় সরকার সচিব ও বাংলাদেশ ব্যাডমিন্টন ফেডারেশনের সভাপতি আব্দুল মালেক। জেলা শহরে জাতীয় পর্যায়ের টুর্নামেন্ট আয়োজন করায় খুশি খেলোয়াররা। তাদের দাবি, তৃণমুল থেকে দক্ষ খেলোয়ার তুলে আনতে প্রয়োজন বেশি বেশি খেলার আয়োজন ও প্রশিক্ষণ। স্কুল পর্যায়ে ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতার উপরও গুরুত্ব দিলেন তারা।
আজ বুধবার বিকালে শহীদ আমিন উদ্দিন স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়াম হলে প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহনকারী বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন করা হয়।
পুরুষ দ্বৈত ইভেন্টে বাংলাদেশ আনসার দলের রাহাদ কবির খালেদ ও জামিল আহম্মেদ, মহিলা এককে বাংলাদেশ আনসারের শাপলা আক্তার, মহিলা দ্বৈত বাংলাদেশ আনসারের শাপলা আক্তার ও দুলালী এবং মিশ্র দ্বৈত বাংলাদেশ আনসারের শাপলা আক্তার ও রাহাদ কবির খালেদ চাম্পিয়ন হন। এ ছাড়া রানার্স আপ হন পুরুষ এককে বাংলাদেশ আনসারের মোহাম্মদ মিনহাজ্ব, পুরুষ দ্বৈত মোহাম্মদ মিনহাজ্ব ও অহিদুল, মহিলা এককে বাংলাদেশ আর্মির এলিনা সুলতানা, মহিলা দ্বৈত বাংলাদেশ আর্মির এলিনা সুলতানা ও নাবিলা জামান এবং মিশ্র দ্বৈত বাংলাদেশ আনসারের দুলালী হালদার ও আহসান হাবিব।
বাংলাদেশ ব্যাডমিন্টন ফেডারেশনের তত্বাবধানে ও পাবনায় জেলা ক্রীড়া সংস্থার ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত জাতীয় ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশীপের পৃষ্ঠপোষকতা করে স্কয়ার ফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেড। পাবনা জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরন করেন স্কয়ার ফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেড ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, জেলা পুলিশ সুপার জিহাদুল কবিরসহ প্রমুখ ব্যাক্তিবর্গ। দায়িত্বরত কর্মকর্তারা জানান, সবার সহযোগিতায় টুর্নামেন্ট সফলভাবে শেষ করা সম্ভব হয়েছে। শিল্প প্রতিষ্ঠান ও বিত্তবান ব্যবসায়ীরা পৃষ্ঠপোষকতা করলে এগিয়ে যাবে দেশের ক্রীড়াঙ্গন। চাম্পিয়ন শিপের মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিলেন এটিএন বাংলা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author