Main Menu

পাবনার বেড়ায় এক পুলিশ সদস্য খুন।

বেড়া (পাবনা) প্রতিনিধি ঃ
পাবনার বেড়া উপজেলার নয়াবাড়ি গ্রামে পাওনাদারদের হাতে আটকাবস্থায় আনোয়ার হোসেন (৩৮) নামের এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। পরিবারের দাবী তাকে ডেকে নিয়ে খুন করা হয়েছে। তিনি সাঁথিয়া উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামের আব্দুল ওহাবের ছেলে। সে ঢাকা মহানগর পুলিশে (ডিএমপি) কর্মরত ছিলেন। গত আট মাস ধরে সে চাকরীতে অনুপস্থিত বলে জানা গেছে।
এলাকাবাসি ও থানা পুলিশ সুত্রে জানা যায়, পুলিশ সদস্য আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে স্থানীয় কিছু লোকজনের দেনা পাওনা ছিল। ওই পুলিশ সদস্য পুলিশের চাকরী দেয়ার কথা বলে অনেকের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। এক পর্যায়ে তিনি কর্মস্থল থেকেও পালিয়ে আসেন। সস্প্রতি তিনি স্থানীয় একটি শিল্প প্রতিষ্ঠান (বাগানবাড়ি মিষ্টান্ন) এর শাহজাদপুর শাখায় চাকরি নেন। এদিকে বাগানবাড়ি মিষ্টান্ন এর প্রধান শাখা কাশিনাথপুর কর্মরত ম্যানেজার ইকবাল হোসেনের এক আত্মীয় চাকরীর জন্য আনোয়ার হোসেনের মাধ্যমে প্রতারিত হয়েছিলেন। ম্যানেজার ইকবাল হোসেন বিষয়টি জানার পর আনোয়ার হোসেনকে রবিবার (২৫মার্চ) রাতে ডেকে নিয়ে আসে। রাতে তাকে আটকিয়ে রাখা হয় বেড়া উপজেলার নয়াবাড়িতে বাগানবাড়ি মিষ্টান্নর একটি মেসে। পাওনা টাকা দিয়ে তাকে ছাড়িয়ে নেয়ার জন্য তার আত্মীয়স্বজনকে মুঠোফোনে বলে দেয়া হয়।
এদিকে সোমবার (২৬মার্চ) সকালে ঘুম থেকে না ওঠায় মেসের সদস্যরা তার কক্ষে গিয়ে আনোয়ার হোসেনকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। পরে আমিনপুর থানায় পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে সোমবার (২৬মার্চ) বেলা একটার সময় তার লাশ উদ্ধার করে। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মেসে থাকা বাগানবাড়ির মিষ্টান্নের ৮ কর্মচারীকে আটক করেছে। তবে ম্যানেজার ইকবাল হোসেন পালাতক রয়েছে।
এব্যাপারে নিহতর স্ত্রী খালেদা খাতুন (৩০) বাদি হয়ে গতকাল মঙ্গলবার (২৭মার্চ) আমিনপুর থানায় ইকবাল হোসেন (৫০), রেজাউল (৪৮),হ্দৃয় (৩৩), সোহেল (৩৫) সুজন (৩৪) টুটুল (৩২)সহ কয়েকজনের নামে একটি হত্যা মামলা করেছে। খালেদা খাতুন জানান, তার স্বামীকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রেখে অত্মহত্যা বলে চালানো চেষ্ঠা চালাচ্ছে।
আমিনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুকুমার মোহন্ত জানান, এব্যাপারে নিহতর স্ত্রী খালেদা খাতুন (৩০) বাদি হয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।