আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলায় গ্রেফতার রাবি শিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত

রাশেদুল ইসলাম রাজন, রাবি প্রতিনিধি:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহান জলির আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলায় গ্রেফতার একই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আতিকুর রহমানকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে বিশ^বিদ্যালয় ভিসি প্রফেসর ড. মুহম্মদ মিজানউদ্দিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের ৪৬৯তম সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
জানতে চাইলে সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর কে বি এম মাহবুবুর রহমান বলেন, সরকারি চাকরির বিধিমালার আলোকে কোনও শিক্ষক ফৌজদারি মামলায় গ্রেফতার থাকলে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। সিন্ডিকেট সভায় এ বিষয়টি বিবেচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
এছাড়া জলির সাবেক স্বামী গনযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক তানভীর আহমেদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের কাছে বিভিন্ন অভিযোগ আসে। যার পেক্ষিতে পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর মো. সুলতান-উল-ইসলামকে প্রধান তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদেরকে স্বচ্ছতার ভিত্তিতে দ্রুত তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ করা হয়েছে।
সিন্ডিকেট সভায় অন্যান্য সিদ্ধান্তগুলোর ব্যাপারে মাহবুবুর রহমান বলেন, বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা হলের নামের আগে ‘শেখ’ যুক্ত করে ‘বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা হল’ নাম করা হয়েছে। এবং যারা দৈনিক মজুরীর ভিত্তিতে নিয়োগ প্রাপ্ত ৩য় শ্রেণী (দক্ষ) কর্মচারীদের ৫০০ ও ৪র্থ শ্রেণী (অদক্ষ) কর্মচারীদের ৪৫০ টাকা করে বেতন নির্ধারণ করা হয়েছে।
এর আগে গত ৫ নভেম্বর আকতার জাহান আত্মহত্যা মামলায় আতিকুর রহমানকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ। সেসময় পুলিশ দাবি করেন, আকতার জাহানের সঙ্গে আতিকুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। আকতার জাহানের মৃত্যুর ঘটনায় তার সংশ্লিষ্টতার বিভিন্ন তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে। তিনি চাইলেই আকতার জাহানকে মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষ করতে পারতেন।
প্রসঙ্গত, গত ৯ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ে জুবেরী ভবনে নিজ কক্ষ থেকে আকতার জাহানের লাশ উদ্ধার করা হয়। এসময় তার কক্ষ থেকে ‘সুইসাইড নোট’ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে অজ্ঞাতনামাদের নামে নগরীর মতিহার থানায় মামলা দায়ের করেন আকতার জাহানের ছোটো ভাই কামরুল হাসান।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author