‘আয়কর বিবরনী দাখিলের সময় আর বাড়ানো হবে না’

ঢাকা : জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বলেছেন, করযোগ্য আয় থাকা সত্ত্বেও যারা কর দিবেন না তাদের খুঁজে বের করা হবে। তিনি বলেন, আজই আয়কর বিবরনী দাখিলের শেষ সময়। এ সময়ের মধ্যে রিটার্ন জমা দিতে হবে। যারা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে রিটার্ন জমা দিবেন না তারা সময়ের আবেদন করে রিটার্ন জমা দিতে পারবেন। করদাতাদের জন্য এনবিআরের দরজা সব সময় খোলা। আজ বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় এনবিআর প্রাঙ্গণে জাতীয় আয়কর দিবস উপলক্ষে আয়োজিত র‌্যালিপূর্ব সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। র‌্যালিতে এনবিআরের বিভিন্ন কর অঞ্চলের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ  সাহিত্যিক আনিসুল হক, কণ্ঠ শিল্পী সুবীর নন্দী, চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, অভিনেতা জাহিদ হাসান, চঞ্চল চৌধুরী, নোবেল, ক্রিকেটার আকরাম খান, মোস্তাফিজুর রহমান প্রমূখ অংশগ্রহণ করেন।
আজ সকাল সাড়ে ৮ টায় সগুনবাগিচা এনবিআর ভবনের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি শুরু হয়। এনবিআর চেয়ারম্যান বেলুন ও শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে র‌্যালির উদ্বোধন করেন।এ সময় র‌্যালিতে বিভিন্ন শ্লোগান সংবলিত প্ল্যাকার্ড,ফেস্টুন,ব্যানার ও পোস্টার প্রদর্শন করা হয়। র‌্যালিটি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সামনে থেকে মৎস্য ভবন, সুপ্রিম কোর্ট, জাতীয় প্রেসক্লাব হয়ে আবার রাজস্ব বোর্ডের সামনে এসে শেষ হয়।
প্রথমবারের মতো ৩০ নভেম্বর আয়কর দিবস পালনের এ উদ্যোগ নিয়েছে এনবিআর। আয়কর সপ্তাহের শেষ দিনে এই দিবস পালন করা হচ্ছে। এর আগে ২০০৮ থেকে প্রতিবছর ১৫ সেপ্টেম্বরে এ দিবস উদযাপন করা হতো। কর প্রদানে উৎসাহ দিতে এবছর ট্যাক্স কার্ডের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। এবার সেরা করাদাতার স্বীকৃতি হিসেবে ১৪১ প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে ট্যাক্স কার্ড দেয়া হয়েছে।এছাড়া প্রতিবছরের মতো এবারও সারা দেশে ৫১৭ জনকে সেরা করদাতাকে সম্মননা দেয়া হয়। এর মধ্যে ৩৭০ জন সর্বোচ্চ আয়কর প্রদানকারী ও ১৪৭ জন দীর্ঘসময় আয়কর প্রদানকারী।
এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, এবারে কর বান্ধব পরিবেশে আয়কর রিটার্ন জমা নিতে বিশেষ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। আজ রিটার্ন দাখিলের শেষ দিনে প্রতিটি কর অঞ্চলে যতক্ষন করদাতা উপস্থিত থাকবেন ততক্ষন তাদের রিটার্ন জমা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে সময় আর বাড়ানো হবে না। সকল করাঞ্চলে মেলার ন্যায় সব ধরনের সুযোগ সুবিধা বজায় রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে যে বার্তাটি পাচ্ছি সেটা হচ্ছে যদি উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করি, নিয়ম কানুন সহজ করি তাহলে করদাতারা করদানে কখনো পিছপা হবেন না।এ জন্য আমি আমাদের কর্মকর্তাদের অনুরোধ জানিয়েছি কেবলমাত্র একটা মাস নয়,সারাবছর যাতে সব অফিসে উপযুক্ত পরিবেশ থাকে।
নজিবুর রহমান জানান, অর্থমন্ত্রী বছরের শুরুতে ৩ লাখ নতুন করদাতা নিবন্ধন করার লক্ষ্যমাত্রা দিয়েছিলেন।তবে বছরের প্রথম চার মাসেই ৫ লাখ করদাতা নিবন্ধিত হয়েছে।অর্থমন্ত্রী সর্বশেষ ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি এ বছরশেষে ২৫ লাখ নিবন্ধিত করদাতা দেখতে চান।ইতোমধ্যে আমরা সে লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি পৌঁছে গেছি। আশাকরি আজকের দিনের শেষে যে পরিসংখ্যান পাবো তা ২৫ লাখ ছাড়িয়ে যাবে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author