বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়া দেখে সারা পৃথিবী হতবাক হচ্ছে- বিভাগীয় কমিশনার আব্দুল হান্নান

ইকবাল কবীর রনজু, চাটমোহর (পাবনা)
২০৪১ সালের মধ্যে আমরা উন্নত জাতিতে পরিণত হব। বিশ্বব্যাংককে গুডবাই জানিয়ে আমরা পদ্মাসেতু তৈরী করছি। জননেত্রী শেখ হাসিনা স্বপ্ন দেখছেন বাংলাদেশের কোন নদী খালে বাঁশের সাঁকো থাকবে না। ব্রীজ হবে কালভার্ট হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বয়ষ্ক ভাতা, বিধবা ভাতা মুক্তিযোদ্ধা ভাতা দিচ্ছেন। মেয়েদের বিনা পয়সায় লেখাপড়া করানোর চেষ্টা করছেন। গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। সারা পৃথিবী দেখছে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়া। বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়া দেখে তারা হতবাক হচ্ছে। আমাদের অগ্রগতি দেখে অনেকের জ্বালা ধরেছে। আজ কোন মা কোন শিশু গাছতলায় থাকে না। কেউ না খেয়ে থাকে না। বাংলাদেশের মানুষ যেন সন্ত্রাসমুক্ত সমাজে বসবাস করতে পারে তার জন্য বর্তমান সরকার সাধ্যমত চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এ দেশের মানুষকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভেদাভেদ ভূলে যাওয়ার আহবান জানিয়েছেন। আপনাদের কোন সমস্যা থাকলে আপনারা পৌরমেয়র, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বা জেলা প্রশাসককে বলবেন। আমরা আপনাদের কাছে গিয়ে সেবা দিয়ে আসব। আমরা সকলে মিলে আমাদের সন্তানদের জন্য একটা সুন্দর বাংলাদেশ গড়ে তোলার চেষ্টা করব। আমরা সম্প্রীতির সাথে বসবাস করছি। আমরা একে অপরের পরম আত্মীয়। এক অশুভ শক্তি. দূবৃত্ত, অপশক্তি আমাদের মাঝে বিরোধ বাধানোর চেষ্টা করছে। ধর্মে ধর্মে বিরোধ বাধানোর চেষ্টা করছে। আমাদেরকে পিছিয়ে দেবার চেষ্টা করছে। আমরা তাদের বিরুদ্ধে সজাগ থাকব। ৩০ নভেম্বর বুধবার বিকেলে পাবনার চাটমোহর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে সন্ত্রাস জঙ্গীবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী মতবিনিময় সভায় উপরোক্ত কথা গুলো বলেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আব্দুল হান্নান।

চাটমোহরে সরকারী সফরকালে তিনি হরিপুর ইউনিয়নের বিলকুড়–লিয়া মৌজার ৫শত ভূমি হীনের মাঝে কবুলিয়ত দলিল হস্তান্তর করেন। জোদ্দারদের বিরুদ্ধে দীর্ঘ দিনের লড়াই সংগ্রাম শেষে এক খন্ড জমির দলিল হাতে পেয়ে তারা আবেগাপ্লুত হয়ে পরেন। পরে তিনি চাটমোহর উপজেলা পরিষদ মিলনায়নে সন্ত্রাস জঙ্গীবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী মত বিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। সন্ধ্যায় তিনি চাটমোহর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মিজানুর রহমানের কার্যালয় পরিদর্শন করেন। তিনি চাটমোহর পৌরসভাধীন সামাদ সওদা মহিলা মাদ্রাসার শহীদ মিনার উদ্বোধন করেন এবং চাটমোহরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শতভাগ শহীদ মিনারের উদ্বোধন ঘোষণা করেন।
এসময় পাবনার জেলা প্রশাসক রেখা রানী বালো, চাটমোহর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাসাদুল ইসলাম হীরা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বেগম শেহেলী লায়লা, পৗরসভার মেয়র মির্জা রেজাউল করিম দুলাল, ভাইস চেয়ারম্যান নূরুল করিম আরজ খান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মিজানুর রহমান, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একরামুল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান রানা মাষ্টারসহ স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদক, সাংবাদিক, শিক্ষক শিক্ষিকা, ভূমিহীন নারী পুরুষ, জনপ্রতিনিধি, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author