সুজানগরের সাতবাড়ীয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রাবেয়া নিজের বাল্য বিয়ে নিজেই রুখে দিলে-বিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আনান্দ উল্লাস

সুজানগর (পাবনা) প্রতিনিধিঃ পাবনার সুজানগর উপজেলার সাতবাড়ীয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী তারাবাড়ীয়ার নতুন পাড়ার রাইহিদুল মন্ডলের মেয়ে রাবেয়া আক্তার (১৩) নিজের বাল্য বিয়ে নিজেই রুখে দিয়ে এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করছে। জানা যায় একই গ্রামের রিকাতের ছেলে ভুটাই এর সাথে গত রোববার বিয়ের দিনক্ষন ঠিক হলে রাবেয়া বিয়েতে অসম্মতি জানালে তাকে জোড়পূর্বক বিয়ে দেওয়ার জন্য বিয়ের সকল আয়োজন সর্ম্পূন করে। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসলে রাবেয়া বাড়ী থেকে পালিয়ে অজানার উদ্যোশ্যে বেড় হয়ে, সুজানগর বাজারে গেলে অপরিচিত একটি মেয়েকে কান্না-কাটি করতে দেখে বাজারের লোকজন তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে, রাবেয়া জানান আমার অমতে বিয়ে ঠিক করায় বাড়ী থেকে পালিয়ে এসেছি। রাবেয়ার কথা শুনে সাতবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল আলমের ছেলে এস এম সাইফুল ইসলাম বিপুল ও ইমরান হোসেন মামুন কে ঘটনাটি জানালে বিপুল ও মামুন রাতে রাবেয়া কে সুজানগর থেকে নিয়ে গিয়ে, বিয়ের অনুষ্ঠান বন্ধ করে রাবেয়া কে তার বাবা-মার কাছে দিয়ে আসে। উক্ত বিপুল পরর্বতিতে রাবেয়া আক্তারের স্কুল ডেস সহ কাপড়-চোপড় ও আর্থিক সহযোগীতা করেন। সাতবাড়ীয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আলাউদ্দিন জানান রাবেয়া আক্তারের সাহসিকতার তার বাল্য বিয়ে বন্ধ করে আমার বিদ্যালয়ের অন্য শিক্ষার্থীদের সাহস বাড়িয়ে দিয়েছে। এ কারণে রাবেয়া আক্তারের লেখা-পড়ার সমস্ত দায়-দায়িত্ব বিদ্যালয় কতৃকপক্ষ বহন করবে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author