অবশেষে বড়াইগ্রামের মাদক সম্রাট ফারুক গ্রেপ্তার ঃ মিষ্টি বিতরণ

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি
দৈনিক যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশের পর বড়াইগ্রামের আলোচিত মাদক সম্রাট ফারুককে অবশেষে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার তার নামে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা দিয়ে কোর্টের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। আটক ফারুক উপজেলার চরগোবিন্দপুর গ্রামের মৃত শহীদুল্লাহর ছেলে। গত ১৯ এপ্রিল দৈনিক যুগান্তরে ‘বড়াইগ্রামে ২ ভাইয়ের মাদক বাণিজ্য’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হলে প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়। অবশেষে ফারুক আটক হওয়ায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মানুষের মধ্যে স্বস্তি ফিরে আসার পাশাপাশি তার নিজ এলাকা জোনাইল বাজারে মিষ্টি বিতরণ করতে দেখা গেছে।
থানা সুত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বড়াইগ্রাম সার্কেল) হারুন অর রশিদের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম জোনাইল পাগলা বাজার এলাকায় স্থানীয়ভাবে সরাইখানা নামে পরিচিত গোপন আস্তানায় অভিযান চালিয়ে একশ পুরিয়া হেরোইন ও একশ পিচ ইয়াবাসহ ফারুককে আটক করে। এ সময় তার সহোদর অপর মাদক সম্রাট আব্দুল্লাহ সেখানে না থাকায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। পরে শুক্রবার ফারুকের নামে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা দিয়ে কোর্টের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এটি তার নামে মাদক আইনে দায়ের হওয়া ২৫ তম মামলা বলে জানা গেছে। এছাড়া তার নামে আরো দুটি হত্যা মামলা চলমান রয়েছে। বড়াইগ্রাম থানার ওসি (তদন্ত) সৈকত আহমেদ বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
জোনাইল ইউপি চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হক এ ব্যাপারে সংবাদ প্রকাশ করায় যুগান্তরকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ফারুক ও তার ভাই আব্দুল্লাহর মাদক সা¤্রাজ্য যেন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছিল। শেষ পর্যন্ত ফারুক আটক হওয়ায় সাধারণ মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। আমরা তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির পাশাপাশি এ মাদক সা¤্রাজ্য গুড়িয়ে দিতে প্রশাসন প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ নেবে বলে এটাই প্রত্যাশা।
প্রসঙ্গত, বড়াইগ্রামসহ পাশর্^বর্তী পাবনার চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া ও আটঘরিয়া উপজেলা জুড়ে রয়েছে ফারুক ও তার সহোদর আব্দুল্লাহর শাক্তিশালী মাদক সিন্ডিকেট। দৈনিক মজুরীর ভিত্তিতে নিয়োগপ্রাপ্ত ১০-১২ জন শ্রমিক দিয়ে প্রাইভেট কার, মোটর সাইকেল, সিএনজি, অটো ভ্যান-ভুটভুটিতে করে নিয়মিত ফেনসিডিল ও ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য এসব উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে পৌঁছে দেয় তারা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author