সহকারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা বুলবুল কলেজ অধ্যক্ষসহ আটক ১৭

রফিকুল ইসলাম সুইট : সহকারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অসুদাপায় অবলম্বন করা ও সহায়তার দায়ে কলেজ অধ্যক্ষ সহ ১৭ শিক্ষক-পরীক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ। পরীক্ষার্থীদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে। শিক্ষকদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।
শনিবার পরীক্ষা চলাকালে পাবনার কয়েকটি কেন্দ্র থেকে তাদের আটক করা হয়। পাবনা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারি কমিশনাররা তাদের আটক করেন।
এদের মধ্যে সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজ কেন্দ্র থেকে অধ্যক্ষ ও ৩ শিক্ষক সহ ৮ জন, পাবনা জেলা স্কুল কেন্দ্র থেকে ২ জন, শহীদ ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে ২ জন, পাবনা ইসলামিয়া কলেজ কেন্দ্র থেকে ৩ জন ও পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট কেন্দ্র থেকে ২ জনকে আটক করা হয়।
পাবনা সদর থানায় ভারপাপ্ত কর্মকর্তা ওবায়দুল হক জানান, শনিবার ছিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক পদে নিয়োগ পরীক্ষা। পাবনার বিভিন্ন কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষা চলাকালে নকল করতে সহায়তা করার অভিযোগে পাবনা সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজের অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম, তিন শিক্ষক ও চার পরীক্ষার্থীকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে আটক করে পুলিশ।
এছাড়া মোবাইল ডিভাইস সহ বিভিন্ন মাধ্যমে নকল করার দায়ে শহরের ৪টি কেন্দ্র থেকে আরো ৯ পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। পরে আটককৃত পরীক্ষার্থীদের বিভিন্ন মেয়াদে জেল জরিমানা করেন ভ্রাম্যমান আদালত। চার শিক্ষককের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

পরীক্ষা চলাকালে নকল করতে সহায়তা করার অভিযোগে আটকৃতরা হলেন- পাবনা সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজ কেন্দ্র থেকে কলেজ অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম, কক্ষ প্রধান একই কলেজের রসায়ন বিভাগের প্রভাষক আব্দুল হক, সুজানগরের দুলাই ডিগ্রি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক শামীম হোসেন, আতাইকুলা আমেনা খাতুন ডিগ্রি কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক ইকবাল হোসেনকে আটক করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এছাড়া নকল করার দায়ে একই কলেজ কেন্দ্র থেকে আটক করা হয় চার পরীক্ষার্থীকে। তারা হলো-পাবনা সদর উপজেলার কোলাদী গ্রামের নাজির উদ্দিনের ছেলে নাজমুন সাকিন মুন, পাবনা পৌর সদরের গোবিন্দা এলাকার মৃত ফজলুল করিমের ছেলে মজদুল করিম, চাটমোহর উপজেলার হরিপুর গ্রামের খলিল উদ্দিনের মেয়ে আল্পনা খাতুন, আমিনপুর থানার আনোয়ার হোসেনের ছেলে রঞ্জু মিয়া।

অপরদিকে মোবাইল ডিভাইসসহ বিভিন্ন মাধ্যমে নকল করার দায়ে শহরের ৪টি কেন্দ্র থেকে ৯ পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে জেলা স্কুল থেকে আটক ২ জন হলো-সদর উপজেলার পার গোবিন্দপুর গ্রামের রেজাউল করিমের স্ত্রী মুন্নী খাতুন, আতাইকুল থানার বিলকুলা গ্রামের ফিরোজ উদ্দিনের স্ত্রী শাহনাজ পারভীন। শহীদ ফজলুল হক পৌর উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে আটক ২ জন হলো-ফরিদপুর উপজেলার বালুঘাটা গ্রামের সেকেন্দার আলীর ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান, সুজানগর উপজেলার নোয়াপাড়া গ্রামের শামসুল আলমের মেয়ে ফারজানা আক্তার। ইসলামিয়া কলেজ কেন্দ্র থেকে আটক ৩ জন হলো-বেড়া উপজেলার পাচুরিয়া গ্রামের আব্দুর রহমানের মেয়ে সায়মা আক্তার, আতাইকুলা থানার দুবলিয়া পুরাতনপাড়া গ্রামের আব্দুল হামিদের মেয়ে সামিয়া আক্তার, সুজানগরের মাসুদ আলী মিয়ার মেয়ে মৌসুমী আক্তার। পলিটেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট কেন্দ্র থেকে আটক ২ জন হলো-সুজানগর উপজেলার বনকোলা গ্রামের বাহের উদ্দিনের স্ত্রী বিউটি খাতুন ও পাবনা পৌর সদরের কৃষ্ণপুর মহল্লার সাইদুর রহমানের স্ত্রী আফরোজা বুলবুল।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author