লালপুরে জমে উঠেছে বিষমুক্ত ফল জামের বাজার

লালপুর (নাটোর) প্রতিনিধিঃ
নাটোরের লালপুরে বিষমুক্ত ফল জামের বাজারে চলছে জমজমাট জামের ব্যবসা। সকাল ১০টা হতে দুপুর একটা পর্যন্ত মাত্র তিন ঘন্টায় ক্রেতা বিক্রেতার বেচা কেনা শেষ। ক্রেতারা প্রতিদিন দাঁড়ি পাল্লা, একটি চট ( জাম রাখার জায়গা) ও কয়েকটি ক্যারেট নিয়ে বসে গ্রীষ্মের ফল জাম কিনে ফেলে দুইশ হতে ছয়শ কেজি। তারা প্রতি কেজি জাম কেনেন ৬০ হতে ৯০ টাকায় এবং প্রতি কেজিতে লাভ করেন পাঁচ হতে দশ টাকা।
নাটোরের লালপুর বাজার হতে লালপুর মহাবিদ্যালয় মোড় পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল নয়টার পর বিভিন্ন মোড়ে এসব জামের বাজার বসতে শুরু করে। ছয় মাথা, বাঁশ হাটা ও কলেজ মোড়ে শিশু কিশোর ফড়িয়াদের জমজমাট জাম বেচা কেনার হাট বসে যায়। কিন্তু এই হাট মাত্র তিন ঘন্টা স্থায়ী হয় । প্রতি বছর গ্রীষ্মের ছুটিকে কাজে লাগাতে এই ব্যবসায় নেমে পড়ে স্কুল কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থীরা। তারা প্রায় এক মাসের আয় দিয়ে অনেকে সারা বছরের লেখা পড়ার খরচ যোগাড় করে থাকে। এলাকার বিভিন্ন গ্রামের গাছ হতে থেকে জাম সংগ্রহ করে আনে বিভিন্ন বয়সের শিশু কিশোর। ১২ হতে ১৯ বছরের শিশু কিশোররা বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে বাঁশের কঞ্চি দিয়ে তৈরী কুটার সাহায্যে গাছ হতে জাম সংগ্রহ করে আনে। কলেজ মোড়ে জামের আড়তে জাম নিয়ে আসা পঞ্চম শ্রেণি পড়–য়া রিহাব আলীকে এব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে সে জানায়, “পুরা জ্যৈষ্ঠি মাস ছুটি থাকায় স্কুলে যাওয়া নাই। তাই এই সময় পড়া লেখার পাশাপাশি জাম কিনি আইনি এখেনে বেচি”। এইচএসসি পরিক্ষার্থী সাগর মাহমুদ ও চয়ন আলী পরীক্ষার অবসরে যৌথভাবে জামের পাইকার হয়েছেন। তারা ক্ষুদে বিক্রেতার নিকট হতে প্রতি কেজি জাম ৬০-৭০ টাকায় কিনে পাশে ঈশ্বরদীর মুলাডুলি বাজারে বিক্রি করেন। সেখান থেকে বড় পাইকাররা ঢাকাসহ দেশের বিভিন্œ স্থানে এসব জাম পঠিয়ে থাকেন। শিশু কিশোর ছাড়াও লালপুরে জামের সবচেয়ে পুরাতন ও বড় ব্যবসায়ী দানু মন্ডল। আরো আছেন নাহিদ মন্ডল, আদম আলী, এনামুলসহ অনেকে। দানু মন্ডল জানান, প্রায় ১৪ বছর যাবত তিনি এই ব্যবসা করছেন। তিনি বলেন, বৈশাখ মাসের শেষে খুদি জাম ও জ্যৈষ্ঠি মাসের শেষের দিক বুম্বাই জামের আমদানী হয়। এই জাম ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি হয়। মুলাডুলির বড় মোকাম ধরতে প্রতিদিন দুপুর একটার মধ্যে বেচাকেনা সমাপ্ত করতে হয়। প্রায় এক মাসের ব্যবসা হলেও বিষমুক্ত ফল জামের কারনে লালপুর সারাদেশে পরিচিতি লাভ করেছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author