রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ কতর্ৃৃক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৭তম প্রায়ন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত।

শাহজাদপুর প্রতিনিধি ঃ
“মৃত্যু দিয়ে যে প্রাণের মূল্য দিতে হয়, সে প্রাণ অমৃত্যুকে করে জয়” সৃষ্টিই যে এই নশ্বর জীবনকে অবিনশ্বরত দেয় সে কথা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতেন বলে এমন উচ্চারন ছিল কবির। ২২ শ্রাবন সেই কবির কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৭তম প্রায়ন দিবস। আজ থেকে ৭৭ বছর আগে বাংলা ১৩৪৮ সনের ২২ শ্রাবন কলকাতার জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়িতে রবীন্দ্রনাথ পরলোক গমন করেন। রবীন্দ্রনাথের হাত ধরেই বাংলা সাহিত্য নতুনরুপ লাভ করে। বাংলা গদ্যের আধুনিকায়নের পথিকৃৎ রবিঠাকুর ছোটগল্পেরও জনক। গল্পে, উপন্যাসে, কবিতায়, প্রবন্ধে নতুন নতুন সুরে ও বিচিত্র গানের বাণীতে অসাধারন সব দার্শনিক চিন্তাসমৃদ্ধ প্রবন্ধে সমাজ ও রাষ্ট্রনীতিসংলগ্ন গভীর জীবনবাদী চিন্তাজাগনিয়া নিবন্ধে এমনকি চিত্রকলায়ও রবীন্দ্রনাথ চিরনবিন-চির অমর। তার দর্শন ছিল মানুষের মুক্তির দর্শন। জীবনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সেই দর্শন অন্বেষণ করেছেন। তার কবিতা গান ও সাহিত্যের অন্যান্য শাখায় লেখনী মানুষকে আজও সেই অন্বেষণের পথে উপলব্ধির পথে আকর্ষন করে। বাঙ্গালী তথা বাংলাদেশীদের যাপিত জীবনাচরনের সঙ্গে রবীন্দ্রনাথের কবিতা ও গান অবিচ্ছেদ্যভাবে জড়িয়ে আছে। তিনি একমাত্র কবি যিনি বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলংকা তিনটি দেশের জাতীয় সঙ্গীত রচয়িতা। জীবন সাধনায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর দার জন্মএবং মৃত্যুকে রাঙিয়ে দিয়ে গেছেন শাশ্¦ত সুন্দরের অমর বার্তায়। বিশ্বকবির প্রায়ান দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত কাল শুক্রবার সকাল ১০টায় শাহজাদপুর রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ এর হলরুমে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৭তম প্রায়ন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ এর অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ ঘোষ উপাচার্য রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ, ড. ফখরুল ইসলাম চেয়ারম্যান রবীন্দ্র অধ্যায়ন বিভাগ এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রফেসর মোঃ আব্দুল লতিফ কোষাধ্যাক্ষ রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ, আলোচক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ড. তানভীর আহমেদ চেয়ারম্যান সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যায়ন বিভাগ। প্রধান অতিথি বিশেষ অতিথি এবং আলোচক গণ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উপরে অনেক আলোচনা করেন। আলোচনা সভার পর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কবিতা আবৃত্তি ও সংগীত পরিবেশন করেন। এছাড়াও সাংবাদিক, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ ছাত্র-ছাত্রী ও সূধীজন উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের সঞ্চালনের দায়িত্বে ছিলেন মোঃ পাপন ও মোছাঃ নূরমাহফুজা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author