পাবনা থেকে মোবারক বিশ্বাস ঃ পাবনায় কলেজ ছাত্রীকে অপহরনের চেষ্টার মামলা অন্তভুক্ত করেনি থানা পুলিশ। ঘটনার একদিন পেরিয়ে গেলেও মামলা অন্থভুক্ত না হওয়ায় চরম হতাশায় পড়েছে ছাত্রীটির পরিবার। এদিকে অপহরনকারীরা মামলা না করতে ছাত্রীটির বাবাকে প্রতিনিয়িত নানাভাবে হুমকি প্রদান করেছে বলে তার বাবা মোঃ হাফিজুর রহমান জানান। মামলা করা হলে চরমমুল্য দিতে হবে হুমকি প্রদান করেন অপহরনকারীর মামা। রোববার রাত সাড়ে ৯টায় পাবনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি ইনচার্য ওবাইদুল হক জানান, এখনও মামলা অর্ন্তভুক্ত করা হয়নি। তবে অভিযুক্তকে সম্ভবত আটক করা হয়েছে। আমি এখনও বিস্তারিত জানিনা বলে লাইন কেটে দেন।
উল্লেখ্য গত শনিবার সন্ধা ৭টার দিকে এডওয়ার্ড কলেজের বিবিএ’র শিক্ষার্থী ফারজানা ইয়াসমিন মিম বাড়ি যাবার পথে পাবনা শহরের আব্দুল হামিদ রোডের বানী সিনেমা হলের সামনে থেকে তাকে অপহরনের চেষ্টা করে। ফারজানা ইয়াসমিন জানায়, সে শহর থেকে গোপালপুরে বাড়ি ফেরার পথে বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বকুল মুক্তমঞ্চের সামনে থেকে প্রকাশ নামের এক যুবক তার চলন্ত রিক্স্রায় জোরপুর্বক উঠে পড়ে। রিক্সায় ওঠা যুবকটি চালককে নির্দেশিত গন্তব্য যেতে বলে। এ সময় কলেজ ছাত্রী চিৎকার দিয়ে রিক্সা থেকে লাফিয়ে স্থানীয় একটি মোটর সাইকেলের শো-রুমে ঢুকে পড়ে। এ সময় ওই ছাত্রীর চিৎকারে পথচারীরা যুবককে আটক করে। এ সময় পাবনা সদর থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি ইনচার্য) ওবাইদুল হককে পথচারীরা অবহিত করলেও পুলিশ সেখানে পৌছাতে অনেক দেরী করে। পরবর্তিতে কতিপয় যুবক এসে অপহরনকারীকে কৌশলে নিয়ে চলে যায়। ঘটনাস্থলে খবর পেয়ে ছাত্রীর মা-বাবা এসে ওই ছাত্রীকে নিয়ে যায়। ছাত্রীর বাবা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে কর্মরত। ছাত্রীর মা জানায় ওই ছেলে দীর্ঘদিন ধরে তার মেয়েকে ইভটিজিংসহ নানা সময়ে উক্তাক্ত করে আসছে। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার ওই ছেলেকে নিষেধ করা হয় এবং তার পরিবারকেও জানানো হয়। অনেকদিন পর আজ এ ঘটনা ঘটিয়েছে। মেয়ের বাবা আরো জানায়, ওই যুবক রিক্সায় উঠে প্রথমেই তার মেয়ের কাছ থেকে মোবাইলটি ছিনিয়ে নেয়। পরে রিক্সাচালককে বানী সিনেমা হলের পিছন দিকে গোবিন্দা রোডে যেতে বলে। এ সময় তার মেয়ে লাফ দিয়ে রিক্সা থেকে নেমে যায়। প্রত্যক্ষদর্শী সুমন ও বাবু জানায়, বিষয়টি ওই এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করলেও পুলিশ বিষয়টি জানার পরও এক রকম উদাসিন ছিলেন। আর এই উদাসিনতার কারনে অপরাধী পালাতে সক্ষম হন। পরবর্তিতে ওই যুবকের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়। সে সুজানগর উপজেলার আমিনপুর থানার রানীনগর ইউনিয়নের ভাটিকয়া গ্রামের মোঃ শামসুল ইসলামের ছেলে মাহবুব আলম প্রকাশ(২৭)। সে শালগাড়িয়া প্লাস্টিক ফ্যাক্টরীরর মোড়ে তার মামা রিপনের বাসায় বসবাস করে। এ ব্যাপারে ছাত্রীর বাবা মোাঃ হাফিজুর রহমান বাদী হয়ে অপহরনের চেষ্টার অভিযোগে পাবনা সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনার একদিন পেরিয়ে গেলেও অভিযোগটি এজাহার হিসেবে গন্য করেননি ওসি। এদিকে অপহরনকারী মাহবুবু আলম প্রকাশ ছাত্রীর বাবাকে মোবাইলে গতকাল রোববার কয়েকবার মামলা না করার জন্য হুমকি দিয়েছে। এদিকে ঘটনার পর থেকে ছাত্রীটির পরিবার আতংকে দিনযাপন করছে, জানান মেয়েটির বাবা। তবে সদর থানার ওসি তদন্ত জালাল উদ্দিন জানান, অভিযুক্ত মাহবুব আলম প্রকাশকে আটক করা হয়েছে। মেয়ের অভিভাবককে ডেকে পাঠানো হবে। তারা মামলা করতে চাইলে মামলা এন্ট্রি করা হবে। এদিকে বিষয়টি মিমাংসা করতে একটি চক্র উঠে পড়ে লেগেছে। তারাই মুলত মামলা এন্ট্রি করতে থানাকে গড়িমসি করাচ্ছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author