গালি দেওয়ার অধিকার কে দিয়েছে, ফারিয়াকে সানাই

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপত্তিকর ভিডিও ছাড়ানো থেকে বিরত থাকবেন এই অঙ্গীকারের মুচলেকা নিয়ে রোববার (১৭ ফেব্রয়ারি) বিকেলে নায়িকা-মডেল সানাই মাহবুব সুপ্রভাকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। এর আগে সকালে তাকে আটক করে ডিএমপির সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম ইউনিটের সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ দমন বিভাগে নিয়ে আসা হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এই বিষয়ে অনেকেই নানা রকম মন্তব্য করেছেন। এই প্রসঙ্গে সানাই এর আটকের খবরের একটি স্কীনশর্ট দিয়ে মন্তব্য করেছেন অভিনেত্রী শবনম ফারিয়াও। রোববার সন্ধ্যা ৬টার দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পোস্টে সানাইয়ের ওপর ক্ষোভ ঝাড়েন তিনি।

সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ফারিয়ার স্ট্যাটাসের পরিপ্রেক্ষিতে ফেসবুক পেজে পাল্টা একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন সানাই মাহবুব সুপ্রভা। পাঠকদের জন্য তার পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

আমি বাংলাদেশের আইন কে অসম্ভব সম্মান করি এবং আমি বিশ্বাস করি আইন সবার জন্য সমান। ফেইসবুক লাইভে আসব আজকে রাত ১০.৩০ টায়। আমি সব ব্যাপার ক্লিয়ার করব আজকের ফেইসবুক লাইভে।

শবনম ফারিয়া নামের একজন মডেল গতকালকে আমাকে নিয়ে যে অসভ্য ভাষায় ফেইসবুকে ওপেন পোস্ট দিয়েছে এটা কি আইনের আওতায় আসেনা???

একজন মানুষ হিসেবে মানুষের ভুল হতেই পারে এবং আমার ভুল ধরিয়ে দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ পুলিশ ও তার আইন আছে, সে ভুল ধরার সে কে? তাকে কে দায়িত্ব দিয়েছে??? ঠিক আছে, আমি তারকা মডেল সানাই আমাকে নিয়ে যে কেউ পোস্ট দিতেই পারে, তারকা দের লাইফ নিয়ে মানুষের জানার আগ্রহ নতুন কিছুনা, একজন সাধারন মানুষ হিসেবে সেও আমার লাইফ নিয়ে মন্তব্য করতে পারে কিন্ত কোন অবস্থায় অসভ্য ভাষা ব্যবহার করতে পারেনা এবং আমার মা, বাবা কে নিয়ে অসভ্য ভাষা ব্যবহার করতে পারে না।

আমি বাংলাদেশ সাইবার অপরাধ নিরাপত্তা বিভাগের কাছে বলছি, আপনারা তার পোস্টটি দেখেন এবং পোস্টের ভাষা গুলো দেখেন, সে কি একজন নাগরিক হয়ে আর একজন নাগরিক কে এগুলো ভাষা ব্যবহার করে গালি দিতে পারে????? তাকে গালি দেওয়ার অধিকার কে দিয়েছে????? তাও আবার ফেইসবুকে?? ফেইসবুক কি গালি দেওয়ার জায়গা??

বিজ্ঞ সাইবার অপরাধ নিরাপত্তা ইউনিট আমি আপনাদের কাছে সাহায্য চাচ্ছি, সে কোন অবস্থায় আমার মা, বাবা কে গালি দিতে পারেনা তাও আবার ফেইসবুকে ওপেন পোস্ট দিয়েছে,

আমার মা, বাবা কোন দোষ করেনি, আমি এর সুষ্ঠু বিচার আশা করছি এবং আমার সাইবার ইউনিটের উপর পূর্ণ আস্থা আছে, আস্থা আছে বাংলাদেশ আইনের উপর। আইন সবার জন্য সমান।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author