চাঁদা আদায় বন্ধ না হলে কঠোর কর্মসুচী। অটো টেম্পু মালিক-শ্রমিক নেতা-কর্মীদের সমাবেশে বক্তরা।

মোবারক বিশ্বাস, পাবনা থেকে ঃ গত ১০ বছর স্বৈরাচারী কায়দায় পাবনা জেলা অটোটেম্পু মালিক শ্রমিক ইউনিয়নের পকেট কমিটি গঠন, পুলিশের নামে অতিরিক্ত চাঁদা আদায় ও সন্ত্রাসী কায়দায় মালিক-শ্রমিকদের নির্যাতনের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে পাবনা জেলা অটো টেম্পু মালিক ও শ্রমিক কর্মচারীরা। আজ বুধবার দুপুরে পাবনা জেলা অটোটেম্পু সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক সভাপতি এসএম রাশেদুন্নবী লোটাসের সভাপতিত্বে এ প্রতিবাদ সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে প্রায় ৪ শতাধিক মালিক শ্রমিক উপস্থিত ছিলেন। প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত বক্তারা বলেন, গত ১০ বছর পাবনার অটো টেম্পু মালিক-শ্রমিক ইউনিয়নের কোন নিবার্চন হয়না। হাজী শরিফ ওরফে গুন্ডে শরিফ আব্বাসকে সভাপতি বানিয়ে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা আত্বসাত করছে এবং পুলিশের নামে অতিরিক্ত টাকা তুলে আত্বসাত করছে। শরিফ গুন্ডে অটো টেম্পু মালিক বা শ্রমিক ইউনিয়নের কেউ না। অথচ জোর পুর্বক সে উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করে আব্বাসের মাধ্যমে গত ১০ বছরে প্রায় ১২ থেকে ১৫ কোটি টাকা আত্বসাত করেছে। গুন্ডে শরিফ তার বাড়িতে বসে পকেট কমিটি গঠন করে এসব অবৈধ চাঁদাবাজি করে আসছে। আমরা যারা শ্রমিক তারা অসুস্থ্য বা দুর্ঘটনায় আহত হয়ে সমিতির কাছে সহায্য চাইলে গুন্ডে শরিফ সন্ত্রাসী দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিতারিত করে। অথচ আমরা প্রতিদিন গাড়ি প্রতি ৮০ টাকা করে চাঁদা দিয়ে থাকি। চাঁদা না দিলে গাড়ি আটকিয়ে রাখা হয় এমনকি মারপিটও করা হয়। সন্ত্রাসী শরিফের ভয়ে এতদিন আমরা চুপ ছিলাম। কিন্তু আমাদের ধৈর্য্যর দেয়াল ভেঙ্গে গেছে। অতিরিক্ত চাঁদা দিতে গিয়ে আমরা নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছি। বর্তমান প্রতিযোগিতার যুগে যদি প্রতিদিন গাড়ি প্রতি ৮০টাকা চাঁদা দিতে হয় তাহলে আমাদের থাকে কি। তাই প্রশাসনের কাছে আমাদের আবেদন মালিক-শ্রমিক ইউনিয়নের নামে সিএনজি ও অটোটেম্পুর চাঁদা তোলা বন্ধ করতে হবে। চাঁদাবাজদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে হবে এবং আমাদের সমিতির নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে এবং আমাদের নেতা আমরাই বানাবো। প্রশাসন যদি চাঁদাবাজদের গ্রেফতার করেত ব্যার্থ হয় তাহলে আমরা আগামীতে ধর্মঘটসহ যে কোন কর্মসুচি দিতে বাধ্য হব।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author