মোবাইলে কথা বলার সময় বাসের চাপায় স্কুল শিক্ষক নিহত

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি
আঞ্চলিক মহাসড়কের ফুটপাতে দাড়িয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলার সময় বাসের নিচে চাপা পড়ে পাবনার ভাঙ্গুড়ায় আরিফুল ইসলাম (৪০) নামে একজন স্কুল শিক্ষক নিহত হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে উপজেলার ম-ুতোষ ইউনিয়নের দিয়ারপাড়া গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আরিফুল ইসলাম ওই গ্রামের তাইজুল ইসলামের ছেলে ও পার্শ্ববর্তী সারুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক। এদিকে রাতেই চাপা দেওয়ার সন্দেহে ওই সড়কে চলাচলকারী দুইটি নৈশ্য কোচ ও তাদের ড্রাইভারকে পার্শ্ববর্তী ফরিদপুর থানা পুলিশ আটক করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভাঙ্গুড়া বাজারে অবস্থিত নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কাজ শেষ করে শুক্রবার রাত ১১টার দিকে আরিফুল বাড়িতে যায়। পরে রাতের খাবার শেষে প্রতিদিনের মতো সে বাড়ির পাশের আঞ্চলিক মহাসড়কে
হাঁটাহাটি করতে যায়। একপর্যায়ে আরিফুলের মোবাইলে রিং আসলে সে সড়কের পাশে ফুটপাতে দাড়িয়ে কথা বলতে থাকে। এসময় রাত ১২টার দিকে পাবনা থেকে ঢাকা অভিমুখে দ্রুতগামী একটি নৈশ্য কোচ দিয়ারপাড়া গ্রামে একটি মোটরসাইকেলকে ওভারটেক করার সময় আরিফুলকে চাপা দেয়। এতে সে মারাত্মক জখম হয়। এসময় স্থানীয়রা আরিফুলকে উদ্ধার করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায় এবং ভাঙ্গুড়া থানায় খবর দেয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক আরিফুলকে পাবনা স্থানান্তর করেন। কিন্তু পাবনা নেয়ার পথেই সে মারা যায়। আরিফুলের সাত বছর বয়সী একটি কন্য সন্তান রয়েছে।

এদিকে স্থানীয়দের দেয়া তথ্যমতে ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশের সহযোগিতায় ফরিদপুর থানা পুলিশ রাত একটার দিকে
ফরিদপুর-ডেমরা আঞ্চলিক মহাসড়ক থেকে ঢাকাগামী দুইটি নৈশ্য কোচ ও তাদের ড্রাইভারকে আটক করে। দিনের যেকোন সময় তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে জানিয়েছে ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশ।

ভাঙ্গুড়া থানায় কর্তব্যরত অফিসার এএসআই সাজেদুর রহমান জানান, ঢাকাগামী একটি নৈশ্য কোচের চাপায় একজন স্কুল শিক্ষক নিহত হয়েছে। এঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুইটি বাস ও তাদের ড্রাইভারকে আটক করা হয়েছে। নিহতের পরিবার চাইলে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে অপরাধীকে সনাক্ত করে মামলা করা হবে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author