Main Menu

দেহরক্ষীকে বিয়ে করলেন থাইল্যান্ডের রাজা

ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী বাহিনীর উপপ্রধান সুথিদারকে বিয়ে করলেন থাইল্যান্ডের রাজা মহা বজিরালংকর্ন। স্ত্রীকে ‘রানী’ উপাধি দিয়েছেন রাজা। এছাড়া জাতীয় টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত হয়েছে অনুষ্ঠানের ভিডিও ক্লিপস।

শনিবার যখন এই বিবাহের অনুষ্ঠান ঘটা করে আয়োজনের আগে রাজপরিবারের এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। ২০১৬ সলে বাবার মৃত্যুর পর থেকে ৬৬ বছর বয়সী বাজিরালংকর্ন সাংবিধানিক রাজা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। আগামী শনিবার ব্রাহ্মণ ও বৌদ্ধ ধর্মমতে তাঁর পরম্পরাগত অভিষেক হওয়ার কথা। অভিষেকের পরে তাকে নিয়ে ব্যাংকক শহরে বিরাট শোভাযাত্রা বেরোনোর কথাও রয়েছে।

রাজ পরিবারের এক বিবৃতিতে বলা হয়, রাজা বাজিরালংকর্ন সুথি না আয়ুদাকে তার রাজকীয় পরিবারে অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এখন থেকে রাজ পরিবারের সদস্য হিসেবে সবধরনের মর্যাদা তিনি ভোগ করবেন। এর আগে থাই রাজা তিনটি বিয়ে করেছেন। তবে সেসব স্ত্রীদের তিনি আগেই তালাক দিয়েছেন। রাজার আগের স্ত্রীদের ঘরে সাত সন্তান রয়েছে।

২০১৪ সালে থাই এয়ারওয়েজের প্রাক্তন ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট সুতিদা তিদজাইকে দেহরক্ষী বাহিনীর উপপ্রধান হিসেবে নিয়োগ করেন রাজা। ২০১৬ সালে তাকে পূর্ণ জেনারেলের মর্যাদা দেয়া হয়। কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে রাজার সঙ্গে তাকে একসঙ্গে দেখা যায়। এই সময় থেকেই রাজার সঙ্গে সুতিদার প্রেম নিয়ে শুরু হয় জল্পনা, যদিও তাকে কখনই স্বীকৃতি দেয়নি রাজ পরিবার।