Main Menu

একনেকে ৮০৫৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ১১ প্রকল্প অনুমোদন

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রায় আট হাজার ৫৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ১১টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে একনেক চেয়ারপারসন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়।

অনুমোদিত এসব প্রকল্পে সরকারের নিজস্ব অর্থায়ন থাকবে প্রায় তিন হাজার ৩৮৯ কোটি টাকা। সংস্থার নিজস্ব অর্থায়নে ব্যয় হবে প্রায় ৫৫১ কোটি টাকা এবং প্রকল্প ঋণ থেকে আসবে প্রায় চার হাজার ১১৩ কোটি টাকা।

অনুমোদিত প্রকল্পসমূহ-

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের ‘নেত্রকোনা-কেন্দুয়া-আঠারবাড়ী-ঈশ্বরগঞ্জ জেলা মহাসড়ক উন্নয়ন’ প্রকল্প; স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের ‘বাংলাদেশের ৩০টি পৌরসভায় পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন’ প্রকল্প; বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের ‘আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরসমূহের সিকিউরিটি ব্যবস্থার উন্নয়ন’ প্রকল্প; শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ‘ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন (প্রথম সংশোধনী)’ প্রকল্প; কৃষি মন্ত্রণালয়ের ‘কুমিল্লা-চাঁদপুর-ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সেচ এলাকা উন্নয়ন’ প্রকল্প; মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দুটি প্রকল্প যথাক্রমে- ‘পোল্ট্রি গবেষণা ও উন্নয়ন জোরদারকরণ’ প্রকল্প এবং ‘প্রাণিসম্পদ উৎপাদন উপকরণ ও প্রাণিজাত খাদ্যের মান নিয়ন্ত্রণ গবেষণাগার স্থাপন (প্রথম সংশোদিত)’ প্রকল্প; বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘খুলনা ৩৩০ মেগাওয়াট ডুয়েল ফুয়েল কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প (প্রথম সংশোধিত)’ প্রকল্প এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের দুটি প্রকল্প যথাক্রমে ‘রাসায়নিক গুদাম নির্মাণ’ প্রকল্প এবং ‘বিসিক শিল্পপার্ক, টাঙ্গাইল (প্রথম সংশোধিত)’ প্রকল্প।

একনেক সভায় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীগণ সভার কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন।

সভায় মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, এসডিজি’র মুখ্য সমন্বয়ক, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্যবৃন্দ, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সমূহের সচিব এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী প্রেস ব্রিফিং করেন।

মন্ত্রী বলেন, ক্রিকেটে বাংলাদেশ অনেক ভালো সাফল্য পেয়েছে গতকাল (সোমবার) ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে। এজন্য প্রধানমন্ত্রী সবাইকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এম এ মান্নান বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সারা দেশের হাইওয়েগুলো নিয়ে এমন একটি মাস্টারপ্ল্যান করতে হবে যাতে চালক এবং যাত্রীদের জন্য নির্দিষ্ট দূরত্ব পর পর সার্ভিস সেন্টার করা যায়। সেখানে চালকরা বিশ্রাম করতে পারবেন৷

মন্ত্রী জানান, ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত যাতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা করা যায়, এখন থেকেই এমন একটি পরিকল্পনা এলজিইডি মন্ত্রণালয়কে নিতে হবে। এছাড়া, বিমানবন্দরে অধিকতর নিরাপত্তার জন্য অত্যাধুনিক ডগ স্কোয়াড করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর বরাত দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, দারিদ্র্যসীমা থেকে কোন কোন জেলা বের হতে পারল তার একটি ডাটাবেজ করতে হবে৷