Main Menu

মাঠে গরু চড়ছে

চলনবিলে ভরা বর্ষা মৌসুমে পানিশুন্য,

চলনবিল অধ্যুষিত বিলগুলি ঘুরে দেখা যায়, কোথাও কোন পানি নেই। বোরো ধান কাটার পর ফাঁকা মাঠ। বিচ্ছিন্ন কিছু জমিতে পাট ও আউশ আবাদ করা হয়েছে। বৃষ্টি বা পানির অভাবে সে ফসল বাড়ছে না। বিশাল চলনবিলের মাঠে মাঠে গরু চড়ছে। তবে গুমানী, চিকনাই আর বড়ালে সামান্য পানি এসেছে। এদিকে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় ভ্যাপসা গরমে জনজীবন অস্থিও হয়ে পড়েছে। কোথাও যেন নেই স্বস্থিও নিঃশ্বাস। খোঁজ নিয়ে জানা গেলো গোটা চলনবিল এলাকায় একই অবস্থা বিরাজমান।

চাটমোহরের হান্ডিয়াল গ্রামের প্রবীণ কৃষক আকবর আলী বলেন, বদলে গেছে সবকিছু। আগে বর্ষাকালের শুরুতেই চলনবিল জুড়ে নতুন পানির আগমন ঘটতো। আকাশ ভেঙ্গে যেন বৃষ্টির পানি পড়তো। সে সময় কৃষক মাঠে গিয়ে খেয়া জালসহ বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে নতুন পানিতে নানা প্রজাতির দেশী মাছ শিকার করা হতো। এখন পানিও নেই, মাছও নেই, বদলে গেছে সবই।

পানিশুন্যতার কারণে মরুকরণের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের সামগ্রিক অবস্থা বিশ্লেষণ করে বিশেষজ্ঞরা এমনটাই আশঙ্কা করছেন। তারা বলেন, মরুকরণের প্রধান দুটি বিষয় হচ্ছে একটি বিস্তৃত এলাকা জুড়ে যদি সেখানকার মাটি অনুর্বর হতে থাকে এবং যদি নদী-নালা, খাল-বিল শুকিয়ে যেতে থাকে এবং বৃষ্টির অভাব ঘটে। বিগত কয়েক দশক ধরে এ লক্ষণগুলো খুব বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে বাংলাদেশে।

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় পরিচালিত জরিপ অনুযায়ী দেশে মোট নদীর সংখ্যা ৩১০ টি। এরমধ্যে মৃত ও মৃতপ্রায় নদীর সংখ্যা ১১৭ টি। এদিকে সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল অ্যান্ড জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সার্ভিসেস (সিইজিআইএস) থেকে প্রাপ্ত তথ্যমতে, সাধারণ হিসাবে গত ৪০ বছরে শুধুমাত্র তিনটি প্রধান নদী পদ্মা, মেঘনা, যমুনার এই তিনটি নদীতেই এ পর্যন্ত বিলীন হয়েছে ১ লাখ ৫০ হাজার হেক্টর জমি। আর তার বিপরীতে নতুন ভূমি জেগেছে মাত্র ৩০ হাজার হেক্টর। প্রতিবছর কোনো না কোনো নদীর শাখা ধীরে ধীরে পলি পড়ে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। কোনো কোনো নদী দখল হয়ে যাচ্ছে ভূমিদস্যুদের হাতে।

চাটমোহর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান রশীদ হোসাইনী বললেন, বর্ষাকালে বৃষি না থাকায় কৃষক আমনের আবাদ থেকে অনেকটা পিছিয়ে পড়েছে। পাট ও আউশ আবদে প্রভাব পড়ছে। তবে মাত্র বর্ষকাল শুরু হলো। বর্ষায় হয়তো বৃষ্টি হবে। তখন কৃষির জন্য উপকার হবে।

চলনবিল ও বড়াল রক্ষা আন্দোলন কমিটির সদস্য সচিব এসএম মিজানুর রহমান বলেন, ১৯৮০ সাল পর্যন্ত চলনবিলের পানি সরবরাহের অন্যতম বড়াল নদে পানিপ্রবাহ ছিল। ১৯৮১ সালে রাজশাহীর চারঘাটে পদ্মা থেকে বড়ালের উৎসমুখে ও পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার সীমান্ত এলাকা দহপাড়ায় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) দুটি জলকপাট নির্মাণ করে। এতে পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্থ হয়। ফলে নৌযান চলাচল ব্যাহত হতে থাকে। স্থানীয় বাসিন্দারা তখন নদ পারাপারের জন্য সেতু তৈরির দাবি তোলেন। কিন্তু সেতু না করে বড়ালে চারটি আড়াআড়ি বাঁধ নির্মাণ করা হয়। এতে বড়ালে পানিপ্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়। তাছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ড চলনবিলে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধসহ বেশ কিছু জলকপাট নির্মাণ করায় চলনবিলে পানি প্রবেশের পথ বাধাগ্রস্থ হয়। দিনে দিনে দখল-দূষণে ২২০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে বড়াল পরিণত হয় মরা খালে। পানি না পেয়ে ব্যাহত হতে থাকে বিস্তীর্ণ চলনবিলের চাষাবাদ। ফলে ভরা বর্ষা মৌসুমেও পানিশুন্য।